ঢাকা , বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo সরকার তারেককে ফিরিয়ে এনে অবশ্যই আদালতের রায় কার্যকর করবে : প্রধানমন্ত্রী Logo ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্রের স্বীকৃতির প্রভাব কী হতে পারে? Logo মায়ের ওড়না শাড়ি বানিয়ে পরলেন জেফার, দেখালেন চমক Logo পরিবারসহ বেনজীরের আরও ১১৩ স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ Logo হায়দরাবাদকে গুঁড়িয়ে, উড়িয়ে কলকাতা চ্যাম্পিয়ন Logo ফতুল্লায় রহিম হাজী ও সামেদ আলীর গ্রুপে সংঘর্ষ, ভাংচুর, আহত ১৫ Logo সোনারগাঁয়ে নির্বাচন পরবর্তী প্রতিহিংসায় শতাধিক ফলজ গাছ কর্তন Logo মুছাপুরে স্বর্ণকার অজিতের প্রেমের ফাঁদে সর্বশান্ত প্রবাসী নারী Logo বন্দরে বিভিন্ন মামলার ২ সাঁজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার Logo নাসিকের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় অন্ত:সত্তা নারীর মৃত্যু, চালক আটক

ঈদের আগে কারাবন্দি আলেমদের মুক্তি চায় হেফাজত

আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগে বিনাবিচারে কারাবন্দি আলেমদের মুক্তি দাবি করেছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে প্রচারের জন্য একটি বিবৃতিতে উক্ত সংগঠনের আমির আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও সিনিয়র নায়েবে আমির আল্লামা মুহাম্মদ ইয়াহইয়া এ দাবি জানান।

যৌথ বিবৃতিতে হেফাজত নেতারা বলেছেন, ২০২১ সালের মার্চে ইন্ডিয়ার কট্টর মুসলিমবিদ্বেষী ও হিন্দুত্ববাদী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময়, ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আলেম, মাদ্রাসাছাত্র ও তাওহিদী জনতার ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে হতাহত করাসহ মিথ্যা মামলা দিয়ে দেশব্যাপী হেফাজতের শত শত নেতাকর্মী ও আলেমকে গ্রেফতার করে জেলে পুরা হয়। যাদের একটা অংশকে বিনাবিচারে এখনো কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে।

তারা বলেছেন, বিনা বিচারে কাউকে বন্দি করে রাখা একটা ‘বিচারবহির্ভূত শাস্তি’। ব্যক্তি, গোষ্ঠী, কোনো বাহিনী বা সরকার যেই করুন না কেন, এটা অপরাধকর্ম; যা বাংলাদেশের সংবিধান, নাগরিকের মৌলিক মানবাধিকার এবং বিদ্যমান আইনের স্পষ্ট বরখেলাপ বা লঙ্ঘন। এসব মানবতাবিরোধী অপরাধ নিয়ে তদন্ত করার জন্য আমরা মানবাধিকার সংস্থাগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

বিবৃতিতে হেফাজতের দুই শীর্ষ নেতা সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগে মুফতি মনির হোসাইন কাসেমী, মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন রাজী, মুফতি মাহমুদুল হাসান গুনবি, মাওলানা মামুনুল হকসহ কারাগারে বন্দি সকল আলেম-উলামা ও হেফাজতে ইসলামীর নেতা-কর্মীদের শর্তহীনভাবে মুক্তি দিন।

অন্যথায় দ্রব্যমূল্যের আকাশছোঁয়া ঊর্ধ্বগতি ও বহুমাত্রিক নাগরিক অসন্তোষে বিক্ষুব্ধ বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গন যেভাবে অস্থির হয়ে উঠছে, সেখানে দেশের ইসলাম অনুরাগী তৌহিদী জনতাকে শান্ত রাখা দুরূহ হয়ে পড়বে। একই সাথে রহমতের মাসে আলেম উলামা ও নির্যাতিত মানুষের অশ্রুঝরা ফরিয়াদ থেকে এমন দুষ্কর্মে জড়িত কেউই আল্লাহর আজাব-গজব ও ক্রোধ থেকে রেহাই পাবেন না।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

সরকার তারেককে ফিরিয়ে এনে অবশ্যই আদালতের রায় কার্যকর করবে : প্রধানমন্ত্রী

ঈদের আগে কারাবন্দি আলেমদের মুক্তি চায় হেফাজত

আপডেট সময় ০৪:১০:৩৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ এপ্রিল ২০২৩

আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগে বিনাবিচারে কারাবন্দি আলেমদের মুক্তি দাবি করেছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে প্রচারের জন্য একটি বিবৃতিতে উক্ত সংগঠনের আমির আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও সিনিয়র নায়েবে আমির আল্লামা মুহাম্মদ ইয়াহইয়া এ দাবি জানান।

যৌথ বিবৃতিতে হেফাজত নেতারা বলেছেন, ২০২১ সালের মার্চে ইন্ডিয়ার কট্টর মুসলিমবিদ্বেষী ও হিন্দুত্ববাদী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময়, ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আলেম, মাদ্রাসাছাত্র ও তাওহিদী জনতার ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে হতাহত করাসহ মিথ্যা মামলা দিয়ে দেশব্যাপী হেফাজতের শত শত নেতাকর্মী ও আলেমকে গ্রেফতার করে জেলে পুরা হয়। যাদের একটা অংশকে বিনাবিচারে এখনো কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে।

তারা বলেছেন, বিনা বিচারে কাউকে বন্দি করে রাখা একটা ‘বিচারবহির্ভূত শাস্তি’। ব্যক্তি, গোষ্ঠী, কোনো বাহিনী বা সরকার যেই করুন না কেন, এটা অপরাধকর্ম; যা বাংলাদেশের সংবিধান, নাগরিকের মৌলিক মানবাধিকার এবং বিদ্যমান আইনের স্পষ্ট বরখেলাপ বা লঙ্ঘন। এসব মানবতাবিরোধী অপরাধ নিয়ে তদন্ত করার জন্য আমরা মানবাধিকার সংস্থাগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

বিবৃতিতে হেফাজতের দুই শীর্ষ নেতা সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগে মুফতি মনির হোসাইন কাসেমী, মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন রাজী, মুফতি মাহমুদুল হাসান গুনবি, মাওলানা মামুনুল হকসহ কারাগারে বন্দি সকল আলেম-উলামা ও হেফাজতে ইসলামীর নেতা-কর্মীদের শর্তহীনভাবে মুক্তি দিন।

অন্যথায় দ্রব্যমূল্যের আকাশছোঁয়া ঊর্ধ্বগতি ও বহুমাত্রিক নাগরিক অসন্তোষে বিক্ষুব্ধ বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গন যেভাবে অস্থির হয়ে উঠছে, সেখানে দেশের ইসলাম অনুরাগী তৌহিদী জনতাকে শান্ত রাখা দুরূহ হয়ে পড়বে। একই সাথে রহমতের মাসে আলেম উলামা ও নির্যাতিত মানুষের অশ্রুঝরা ফরিয়াদ থেকে এমন দুষ্কর্মে জড়িত কেউই আল্লাহর আজাব-গজব ও ক্রোধ থেকে রেহাই পাবেন না।