ঢাকা , শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সেই মসজিদে হামলাকারী পুলিশের পোশাক পরা ছিল

পাকিস্তানের পেশোয়ারে একটি মসজিদের ভেতর আত্মঘাতী বোমা হামলায় সম্প্রতি শতাধিক মানুষের প্রাণ গেছে। এ ঘটনায় আত্মঘাতী ওই হামলাকারী পুলিশের পোশাক পরা অবস্থায় ছিল। দেশটির প্রাদেশিক এক পুলিশপ্রধান এ তথ্য দিয়েছেন। খবর রয়টার্স।

দেশটির খায়বার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের পুলিশপ্রধান বলছেন, সোমবার মসজিদে হামলাকারী ব্যক্তি একজন পুলিশ সদস্য।
এ সময় তিনি খেয়ালিপনার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করে বলেন, এটি আমাদের ভুল। এর জন্য মাফ চাইছি।

সোমবার স্থানীয় সময় দুপুরে যখন বোমার বিস্ফোরণ ঘটে তখন সেখানে জোহরের নামাজ চলছিল। বিস্ফোরণে দোতলা মসজিদটির একটি অংশ ধসে পড়েছে।

এর আগে এ হামলার সঙ্গে পাকিস্তান তালেবানের সম্পর্ক রয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

এ হামলার পর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ বলেন, যারা পাকিস্তানের সুরক্ষায় দায়িত্ব পালন করছেন তাদের হামলার লক্ষ্যবস্তু বানিয়ে সন্ত্রাসীরা দেশজুড়ে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাইছে।

পেশোয়ারে এ হামলার আগে গত মাসে পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিমে একটি পুলিশ স্টেশনে একই ধরনের একটি হামলা হয়; যার পরিপ্রেক্ষিতে হওয়া সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে ৩৩ জঙ্গি মারা যায়।

বিস্ফোরণের সময় মসজিদে ৩০০ থেকে ৪০০ মুসল্লি ছিলেন। হতাহতদের অধিকাংশই পুলিশ সদস্য।

পুলিশ লাইনসের ভেতর সব থেকে সুরক্ষিত এলাকায় (রেড জোন) ওই মসজিদের অবস্থান। তার আশপাশেই পুলিশের সদর দপ্তর, গোয়েন্দা বিভাগ ও সন্ত্রাস দমন বিভাগের কার্যালয়।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

সেই মসজিদে হামলাকারী পুলিশের পোশাক পরা ছিল

আপডেট সময় ০৪:২৯:৩২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

পাকিস্তানের পেশোয়ারে একটি মসজিদের ভেতর আত্মঘাতী বোমা হামলায় সম্প্রতি শতাধিক মানুষের প্রাণ গেছে। এ ঘটনায় আত্মঘাতী ওই হামলাকারী পুলিশের পোশাক পরা অবস্থায় ছিল। দেশটির প্রাদেশিক এক পুলিশপ্রধান এ তথ্য দিয়েছেন। খবর রয়টার্স।

দেশটির খায়বার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের পুলিশপ্রধান বলছেন, সোমবার মসজিদে হামলাকারী ব্যক্তি একজন পুলিশ সদস্য।
এ সময় তিনি খেয়ালিপনার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করে বলেন, এটি আমাদের ভুল। এর জন্য মাফ চাইছি।

সোমবার স্থানীয় সময় দুপুরে যখন বোমার বিস্ফোরণ ঘটে তখন সেখানে জোহরের নামাজ চলছিল। বিস্ফোরণে দোতলা মসজিদটির একটি অংশ ধসে পড়েছে।

এর আগে এ হামলার সঙ্গে পাকিস্তান তালেবানের সম্পর্ক রয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

এ হামলার পর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ বলেন, যারা পাকিস্তানের সুরক্ষায় দায়িত্ব পালন করছেন তাদের হামলার লক্ষ্যবস্তু বানিয়ে সন্ত্রাসীরা দেশজুড়ে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাইছে।

পেশোয়ারে এ হামলার আগে গত মাসে পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিমে একটি পুলিশ স্টেশনে একই ধরনের একটি হামলা হয়; যার পরিপ্রেক্ষিতে হওয়া সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে ৩৩ জঙ্গি মারা যায়।

বিস্ফোরণের সময় মসজিদে ৩০০ থেকে ৪০০ মুসল্লি ছিলেন। হতাহতদের অধিকাংশই পুলিশ সদস্য।

পুলিশ লাইনসের ভেতর সব থেকে সুরক্ষিত এলাকায় (রেড জোন) ওই মসজিদের অবস্থান। তার আশপাশেই পুলিশের সদর দপ্তর, গোয়েন্দা বিভাগ ও সন্ত্রাস দমন বিভাগের কার্যালয়।