ঢাকা , শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাত প্রতিমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান মন্ত্রিসভায় সাত জন নতুন সদস্য অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বঙ্গভবনের ঐতিহাসিক দরবার হলে রাষ্ট্রপতি মো: সাহাবুদ্দিন নতুন প্রতিমন্ত্রীদের শপথ পাঠ করান।
শপথ গ্রহণের পর তারা পদ ও গোপনীয়তার শপথপত্রে স্বাক্ষর করেন।
নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যরা হলেন- রাজশাহী-৫ আসনের সংসদ সদস্য মো. আব্দুল ওয়াদুদ, নওগাঁ-২ আসনের সংসদ সদস্য মো: শহীদুজ্জামান সরকার, চট্টগ্রাম-১৪ আসনের সংসদ সদস্য মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী এবং সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য শামসুন্নাহার চম্পা, ওয়াসিকা আয়েশা খান, নাহিদ ইজহার খান ও রোকেয়া সুলতানা।
গত ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয়ের পর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা গত ১১ জানুয়ারি টানা চতুর্থবারের মত সরকার গঠন করেন।
প্রথমে গঠিত মন্ত্রিসভায় ৩৭ সদস্যের মধ্যে ২৬ জন মন্ত্রী ও ১১ জন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। এখন নতুনদের নিয়ে মন্ত্রিপরিষদের সদস্যদের মোট সংখ্যা দাঁড়াল ৪৪। বর্তমানে শেখ হাসিনার মন্ত্রিসভায় ২৬ জন মন্ত্রী ও ১৮ জন প্রতিমন্ত্রী রয়েছেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রাষ্ট্রপতির পতœী ড. রেবেকা সুলতানা শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
ঐতিহাসিক দরবার হলে উপস্থিত অতিথিদের মধ্যে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, মন্ত্রীবর্গ, সংসদের হুইপ, সংসদ সদস্য (এমপি), রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট সচিবগণ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক, এবং সিনিয়র বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়।
প্রতিমন্ত্রীবৃন্দ জাতীয় সংবিধান ও রাষ্ট্রীয় সার্বভৌমত্ব রক্ষার অঙ্গীকার নিয়ে শপথ পাঠ করেন।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন শপথ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। প্রায় দুই শতাধিক অতিথিকে ঐতিহাসিক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়।
গত ৭ জানুয়ারি ২৯৯টি আসনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগ ‘নৌকা’ প্রতীক নিয়ে ২২৩টি আসনে নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করে।
নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ১১টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৬২টি আসনে, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক দল-ওয়ার্কার্স পার্টি ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) একটি করে আসন পায়। বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি একটি আসনে বিজয় লাভ করে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

সাত প্রতিমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ

আপডেট সময় ০৩:৪৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান মন্ত্রিসভায় সাত জন নতুন সদস্য অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বঙ্গভবনের ঐতিহাসিক দরবার হলে রাষ্ট্রপতি মো: সাহাবুদ্দিন নতুন প্রতিমন্ত্রীদের শপথ পাঠ করান।
শপথ গ্রহণের পর তারা পদ ও গোপনীয়তার শপথপত্রে স্বাক্ষর করেন।
নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যরা হলেন- রাজশাহী-৫ আসনের সংসদ সদস্য মো. আব্দুল ওয়াদুদ, নওগাঁ-২ আসনের সংসদ সদস্য মো: শহীদুজ্জামান সরকার, চট্টগ্রাম-১৪ আসনের সংসদ সদস্য মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী এবং সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য শামসুন্নাহার চম্পা, ওয়াসিকা আয়েশা খান, নাহিদ ইজহার খান ও রোকেয়া সুলতানা।
গত ৭ জানুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয়ের পর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা গত ১১ জানুয়ারি টানা চতুর্থবারের মত সরকার গঠন করেন।
প্রথমে গঠিত মন্ত্রিসভায় ৩৭ সদস্যের মধ্যে ২৬ জন মন্ত্রী ও ১১ জন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। এখন নতুনদের নিয়ে মন্ত্রিপরিষদের সদস্যদের মোট সংখ্যা দাঁড়াল ৪৪। বর্তমানে শেখ হাসিনার মন্ত্রিসভায় ২৬ জন মন্ত্রী ও ১৮ জন প্রতিমন্ত্রী রয়েছেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রাষ্ট্রপতির পতœী ড. রেবেকা সুলতানা শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
ঐতিহাসিক দরবার হলে উপস্থিত অতিথিদের মধ্যে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, মন্ত্রীবর্গ, সংসদের হুইপ, সংসদ সদস্য (এমপি), রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট সচিবগণ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক, এবং সিনিয়র বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়।
প্রতিমন্ত্রীবৃন্দ জাতীয় সংবিধান ও রাষ্ট্রীয় সার্বভৌমত্ব রক্ষার অঙ্গীকার নিয়ে শপথ পাঠ করেন।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন শপথ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। প্রায় দুই শতাধিক অতিথিকে ঐতিহাসিক অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়।
গত ৭ জানুয়ারি ২৯৯টি আসনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগ ‘নৌকা’ প্রতীক নিয়ে ২২৩টি আসনে নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করে।
নির্বাচনে জাতীয় পার্টি ১১টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৬২টি আসনে, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক দল-ওয়ার্কার্স পার্টি ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) একটি করে আসন পায়। বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি একটি আসনে বিজয় লাভ করে।