ঢাকা , সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo বন্দরে শ্লীলতাহানির ভিডিও ধারণ করে যুবতীকে ধর্ষণ, প্রধান আসামি গ্রেপ্তার Logo আড়াইহাজারে রেস্টুরেন্ট থেকে অপত্তিকর অবস্থায় ১৬ কিশোর কিশোরী আটক Logo সোনারগাঁয়ে ট্রাক চাপায় যুবক নিহত, চালক আটক Logo সোনারগাঁয়ের আলোচিত সাধন মিয়া হত্যা মামলায় দুইজনের মৃত্যুদন্ড ও একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড Logo বন্দর ১নং খেয়াঘাট মাঝি সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন Logo আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে মাকসুদ চেয়ারম্যান’র মত বিনিময় সভা ও উঠান বৈঠক Logo না’গঞ্জ জেলা জা’পা সভাপতি সানুর নাম ভাঙ্গিয়ে সুমন প্রধানের অপকর্ম রুখবে কে? Logo হুথিদের হামলায় লোহিত সাগরে ডুবে গেল সেই জাহাজ Logo রাতের লাইভের নেপথ্যের কারণ জানালেন তাহসান-ফারিণ Logo যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় সশস্ত্র বাহিনীকে সক্ষম করে তোলা হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

রোমাঞ্চকর করাচি টেস্ট শেষ হলো ড্রয়ে

করাচিতে সরফরাজ আহমেদের লড়াকু সেঞ্চুরিতে এক পর্যায়ে পাকিস্তানের জয়ের পাল্লাই ছিল ভারি। পাকিস্তানি ব্যাটার ফেরার পর ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দিতে থাকে নিউজিল্যান্ড। কিন্তু শেষ উইকেট জুটিতে রোমাঞ্চকর হয়ে ওঠা দ্বিতীয় টেস্টে ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে পাকিস্তান। তাতে দুটি টেস্টই ড্রয়ের মুখ দেখেছে।

অথচ ৩১৯ রান তাড়ায় শূন্য রানে ২ উইকেট হারিয়ে পরাজয়ই চোখ রাঙাচ্ছিল। এক পর্যায়ে স্কোর ছিল ৮০ রানে ৫ উইকেট। সেখান থেকে লড়াকু সেঞ্চুরিতে জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়ে তুলেন সরফরাজ। সৌদ শাকিলের সঙ্গে ১২৩ রানের দারুণ জুটিতে মূল প্রতিরোধটা গড়েছিলেন। শাকিল ৩২ রানে ফিরলে তার পরও থেমে থাকেননি। আগা সালমানকে নিয়ে তার পর ৭০ রান যোগ করেছেন। সালমান, হাসান আলীর পর সরফরাজ নিজেও ১১৮ রানে বিদায় নিলে ম্যাচ ফের ঝুঁকে পড়ে কিউইদের দিকে।

মূলত দিনের শেষ ভাগে দ্বিতীয় নতুন বল হাতে নেওয়ার পরই ইনিংসের দৃশ্যপট বদলেছে। তখন জয়ের জন্য নিউজিল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল আর এক উইকেট। কিন্তু বড় শট খেলে ম্যাচটা রোমাঞ্চকর অবস্থায় দাঁড় করাতে সক্ষম হন শেষ দুই ব্যাটার নাসিম শাহ ও আবরার। জয় পেতে পাকিস্তানের তখনও প্রয়োজন ছিল আর ১৫ রান। কিন্তু আলোর স্বল্পতায় ৩ ওভার আগেই ড্রয়ে নিষ্পত্তি হয়েছে এই টেস্ট।

৭৮ ও ১১৮ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচসেরা হয়েছেন সরফরাজ আহমেদ। সিরিজ সেরাও তিনি। সিরিজে তার মোট সংগ্রহ ৩৩৫ রান।

৭৫ রানে ৫ উইকেট নেন মাইকেল ব্রেসওয়েল। দুটি করে নিয়েছেন টিম সাউদি ও ইশ সোধি। একটি করে নেন ম্যাট হেনরি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংসে ১৩১ ওভারে ৪৪৯ (ল্যাথাম ৭১, কনওয়ে ১২২, হেনরি ৬৮* ব্লান্ডেল ৫১; আবরার ৪/১৪৯, নাসিম ৩/৭১, আগা ৩/৭৫)

নিউজিল্যান্ড দ্বিতীয় ইনিংসে ৮২ ওভারে ২৭৭/৫ ডি. (ল্যাথাম ৬২, ব্লান্ডেল ৭৪, ব্রেসওয়েল ৭৪*)

পাকিস্তান প্রথম ইনিংসে ১৩৩ ওভারে ৪০৮ (ইমাম ৮৩, সৌদ শাকিল ১২৫*, সরফরাজ ৭৮; আজাজ ৩/৮৮, সোধি ৩/৯৫)

পাকিস্তান দ্বিতীয় ইংনিসে ৯০ ওভারে ৩০৪/৯ (সরফরাজ ১১৮, শান ৩৫, সৌদ ৩২, আগা ৩০; ব্রেসওয়েল ৪/৭৫)

ফল: ম্যাচ ড্র।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

বন্দরে শ্লীলতাহানির ভিডিও ধারণ করে যুবতীকে ধর্ষণ, প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

রোমাঞ্চকর করাচি টেস্ট শেষ হলো ড্রয়ে

আপডেট সময় ০৩:৪৭:৫১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৭ জানুয়ারী ২০২৩

করাচিতে সরফরাজ আহমেদের লড়াকু সেঞ্চুরিতে এক পর্যায়ে পাকিস্তানের জয়ের পাল্লাই ছিল ভারি। পাকিস্তানি ব্যাটার ফেরার পর ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দিতে থাকে নিউজিল্যান্ড। কিন্তু শেষ উইকেট জুটিতে রোমাঞ্চকর হয়ে ওঠা দ্বিতীয় টেস্টে ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে পাকিস্তান। তাতে দুটি টেস্টই ড্রয়ের মুখ দেখেছে।

অথচ ৩১৯ রান তাড়ায় শূন্য রানে ২ উইকেট হারিয়ে পরাজয়ই চোখ রাঙাচ্ছিল। এক পর্যায়ে স্কোর ছিল ৮০ রানে ৫ উইকেট। সেখান থেকে লড়াকু সেঞ্চুরিতে জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়ে তুলেন সরফরাজ। সৌদ শাকিলের সঙ্গে ১২৩ রানের দারুণ জুটিতে মূল প্রতিরোধটা গড়েছিলেন। শাকিল ৩২ রানে ফিরলে তার পরও থেমে থাকেননি। আগা সালমানকে নিয়ে তার পর ৭০ রান যোগ করেছেন। সালমান, হাসান আলীর পর সরফরাজ নিজেও ১১৮ রানে বিদায় নিলে ম্যাচ ফের ঝুঁকে পড়ে কিউইদের দিকে।

মূলত দিনের শেষ ভাগে দ্বিতীয় নতুন বল হাতে নেওয়ার পরই ইনিংসের দৃশ্যপট বদলেছে। তখন জয়ের জন্য নিউজিল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল আর এক উইকেট। কিন্তু বড় শট খেলে ম্যাচটা রোমাঞ্চকর অবস্থায় দাঁড় করাতে সক্ষম হন শেষ দুই ব্যাটার নাসিম শাহ ও আবরার। জয় পেতে পাকিস্তানের তখনও প্রয়োজন ছিল আর ১৫ রান। কিন্তু আলোর স্বল্পতায় ৩ ওভার আগেই ড্রয়ে নিষ্পত্তি হয়েছে এই টেস্ট।

৭৮ ও ১১৮ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচসেরা হয়েছেন সরফরাজ আহমেদ। সিরিজ সেরাও তিনি। সিরিজে তার মোট সংগ্রহ ৩৩৫ রান।

৭৫ রানে ৫ উইকেট নেন মাইকেল ব্রেসওয়েল। দুটি করে নিয়েছেন টিম সাউদি ও ইশ সোধি। একটি করে নেন ম্যাট হেনরি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংসে ১৩১ ওভারে ৪৪৯ (ল্যাথাম ৭১, কনওয়ে ১২২, হেনরি ৬৮* ব্লান্ডেল ৫১; আবরার ৪/১৪৯, নাসিম ৩/৭১, আগা ৩/৭৫)

নিউজিল্যান্ড দ্বিতীয় ইনিংসে ৮২ ওভারে ২৭৭/৫ ডি. (ল্যাথাম ৬২, ব্লান্ডেল ৭৪, ব্রেসওয়েল ৭৪*)

পাকিস্তান প্রথম ইনিংসে ১৩৩ ওভারে ৪০৮ (ইমাম ৮৩, সৌদ শাকিল ১২৫*, সরফরাজ ৭৮; আজাজ ৩/৮৮, সোধি ৩/৯৫)

পাকিস্তান দ্বিতীয় ইংনিসে ৯০ ওভারে ৩০৪/৯ (সরফরাজ ১১৮, শান ৩৫, সৌদ ৩২, আগা ৩০; ব্রেসওয়েল ৪/৭৫)

ফল: ম্যাচ ড্র।