ঢাকা , শুক্রবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাশিয়ার অগ্রগতির কথা স্বীকার করল ব্রিটেন

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে রুশ বাহিনী বড় ধরনের হামলা চালিয়েছে এবং বেশ খানিকটা অগ্রসর হয়েছে বলে জানিয়েছে ব্রিটেন। তবে এর মাধ্যমে মস্কো বড় ধরনের কোনো সাফল্য পাবে না বলে মনে করছে দেশটি। ব্রিটেনের এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর দিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে ব্রিটেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে- রাশিয়ান সেনাদের অন্তত একটি ব্রিগেড, যেখানে কয়েক হাজার সেনা থাকে, পূর্ণশক্তি নিয়ে ভালেদার নামক শহরে হামলা চালিয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, যতটুকু জানা যায় তাতে কাশলাহাচ নদীর দক্ষিণে কয়েকশ মিটার অগ্রসর হয়েছে রুশ বাহিনী। বিগত কয়েক মাস থেকে এই এলাকাটি যুদ্ধের ফ্রন্টলাইন হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। ছোট্ট এই নদীটি পাভলিভকা শহরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। ভালেদার শহর থেকে যা প্রায় দুই কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত।

গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই এলাকায় রাশিয়া তাদের অগ্রগতি অব্যাহত রাখবে, এর বাস্তবভিত্তিক সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এই অগ্রগতির গুরুত্বপূর্ণ কোনো ফলাফলের বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে প্রতিবেদনে।

অপরদিকে, রুশ-নিয়ন্ত্রিত ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় দোনেৎস্ক রাজ্যের প্রশাসক (অ্যাডমিনিস্ট্রেটর) ডেনিস পুশিলিন বলেছেন, রুশ সেনারা ভালেদার এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। এটি একটি কয়লা খনির শহর। তবে যুদ্ধ শুরুর পর থেকে এটিকে ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করে আসছিল ইউক্রেন।

পুশিলিনের উপদেষ্টা ইয়ান গাগিন বলেছেন, রাশিয়ার ভাড়াটে বাহিনী ওয়াগনার বাখমুতগামী একটি সরবরাহ লাইনের আংশিক নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। গত কয়েক মাস ধরে গুরুত্বপূর্ণ এ বাখমুত শহরের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেষ্টা করছে রাশিয়া।

এর এক দিন আগে ওয়াগনার গ্রুপের প্রধান দাবি করেন, তাদের যোদ্ধারা ব্লাহোদাতন গ্রামের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। বাখমুতের ঠিক উত্তরে অবস্থিত গ্রামটি।

তবে ইউক্রেনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, তারা ব্লাহোদাতন ও ভালেদারে রুশ হামলা প্রতিহত করেছে। রয়টার্স বলছে, তারা স্বতন্ত্রভাবে উভয়পক্ষের দাবি ভেরিভাই করতে (সত্যতা নিশ্চিত) পারেনি। তবে পরিস্থিতি ইঙ্গিত দিচ্ছে যে, রাশিয়ান বাহিনী ধীরে হলেও অগ্রসর হচ্ছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি সোমবার বলেছেন, রুশ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ইউক্রেন যে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে তার ‘বড় প্রতিশোধ’ নিতে শুরু করেছে মস্কো। রুশ বাহিনী যখন ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে ক্রমাগত অগ্রসর হচ্ছে, তখন এমন মন্তব্য করেন তিনি।

কয়েক সপ্তাহ আগে থেকে জেলেনস্কি সতর্ক করে আসছেন যে, ইউক্রেনের দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলে বড় ধরনের হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে মস্কো।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

রাশিয়ার অগ্রগতির কথা স্বীকার করল ব্রিটেন

আপডেট সময় ০৩:৩২:৪৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে রুশ বাহিনী বড় ধরনের হামলা চালিয়েছে এবং বেশ খানিকটা অগ্রসর হয়েছে বলে জানিয়েছে ব্রিটেন। তবে এর মাধ্যমে মস্কো বড় ধরনের কোনো সাফল্য পাবে না বলে মনে করছে দেশটি। ব্রিটেনের এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর দিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে ব্রিটেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে- রাশিয়ান সেনাদের অন্তত একটি ব্রিগেড, যেখানে কয়েক হাজার সেনা থাকে, পূর্ণশক্তি নিয়ে ভালেদার নামক শহরে হামলা চালিয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, যতটুকু জানা যায় তাতে কাশলাহাচ নদীর দক্ষিণে কয়েকশ মিটার অগ্রসর হয়েছে রুশ বাহিনী। বিগত কয়েক মাস থেকে এই এলাকাটি যুদ্ধের ফ্রন্টলাইন হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। ছোট্ট এই নদীটি পাভলিভকা শহরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। ভালেদার শহর থেকে যা প্রায় দুই কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত।

গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই এলাকায় রাশিয়া তাদের অগ্রগতি অব্যাহত রাখবে, এর বাস্তবভিত্তিক সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এই অগ্রগতির গুরুত্বপূর্ণ কোনো ফলাফলের বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে প্রতিবেদনে।

অপরদিকে, রুশ-নিয়ন্ত্রিত ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় দোনেৎস্ক রাজ্যের প্রশাসক (অ্যাডমিনিস্ট্রেটর) ডেনিস পুশিলিন বলেছেন, রুশ সেনারা ভালেদার এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। এটি একটি কয়লা খনির শহর। তবে যুদ্ধ শুরুর পর থেকে এটিকে ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করে আসছিল ইউক্রেন।

পুশিলিনের উপদেষ্টা ইয়ান গাগিন বলেছেন, রাশিয়ার ভাড়াটে বাহিনী ওয়াগনার বাখমুতগামী একটি সরবরাহ লাইনের আংশিক নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। গত কয়েক মাস ধরে গুরুত্বপূর্ণ এ বাখমুত শহরের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেষ্টা করছে রাশিয়া।

এর এক দিন আগে ওয়াগনার গ্রুপের প্রধান দাবি করেন, তাদের যোদ্ধারা ব্লাহোদাতন গ্রামের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। বাখমুতের ঠিক উত্তরে অবস্থিত গ্রামটি।

তবে ইউক্রেনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, তারা ব্লাহোদাতন ও ভালেদারে রুশ হামলা প্রতিহত করেছে। রয়টার্স বলছে, তারা স্বতন্ত্রভাবে উভয়পক্ষের দাবি ভেরিভাই করতে (সত্যতা নিশ্চিত) পারেনি। তবে পরিস্থিতি ইঙ্গিত দিচ্ছে যে, রাশিয়ান বাহিনী ধীরে হলেও অগ্রসর হচ্ছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি সোমবার বলেছেন, রুশ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ইউক্রেন যে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে তার ‘বড় প্রতিশোধ’ নিতে শুরু করেছে মস্কো। রুশ বাহিনী যখন ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে ক্রমাগত অগ্রসর হচ্ছে, তখন এমন মন্তব্য করেন তিনি।

কয়েক সপ্তাহ আগে থেকে জেলেনস্কি সতর্ক করে আসছেন যে, ইউক্রেনের দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলে বড় ধরনের হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে মস্কো।