ঢাকা , বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিচারক যদি বিচার বিক্রি করেন তাহলে প্রসিডিং নিশ্চিত: প্রধান বিচারপতি

যেকোনো ধরনের দুর্নীতি একটা ক্যানসার। আমার কোনো বিচারক যদি বিচার বিক্রি করেন তাহলে প্রসিডিং নিশ্চিত করতে আমি বিন্দুমাত্র দ্বিধা করব না।

শনিবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির শতবর্ষ উদ্যাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

তিনি বলেন, আইনজীবী ও বিচারকদের উদ্দেশ্য একটাই- স্বল্প সময়ে ও স্বল্প খরচে সমাজে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করা। নইলে বছরের পর বছর মাসের পর মাস বিচারপ্রার্থীরা আদালতের বারান্দায় ঘুরে বেড়াবেন এবং বলবেন, এ দেশে বিচার নাই। তাহলে দায়ী হবে সিস্টেম, আইনজীবী ও বিচারক।

তিনি আইনজীবী ও বিচারকদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা আছেন বলেই পৃথিবীতে এখনো শৃঙ্খলা আছে, ন্যায্যতা আছে। কেউ আইনি সমস্যায় পড়লে সরাসরি আপনাদের সঙ্গেই আগে কথা বলে। আপনারাই বিচারপ্রার্থীদের প্রতিনিধি হিসেবে তাদের অন্যায়, অশুভ ও অমঙ্গলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেন।

এর আগে প্রধান বিচারপতি আদালত প্রাঙ্গণে বিচার প্রার্থীদের ন্যায়কুঞ্জ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন এবং আলোচনা সভার শুরুতেই প্রয়াত আইনজীবীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জোব্দুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি এম ইয়ায়েতুর রহিম ও আইন কমিশনের সদস্য বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীর।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ফিন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রবিউল আলম বুদু, জেলা ও দায়রা জজ আদীব আলী, নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনালের বিচারক নরেশচন্দ্র সরকার, সিনিয়র আইনজীবী শাহাজাহান আলী, বারের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান কনক প্রমুখ।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

বিচারক যদি বিচার বিক্রি করেন তাহলে প্রসিডিং নিশ্চিত: প্রধান বিচারপতি

আপডেট সময় ০৪:১০:২৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩

যেকোনো ধরনের দুর্নীতি একটা ক্যানসার। আমার কোনো বিচারক যদি বিচার বিক্রি করেন তাহলে প্রসিডিং নিশ্চিত করতে আমি বিন্দুমাত্র দ্বিধা করব না।

শনিবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির শতবর্ষ উদ্যাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

তিনি বলেন, আইনজীবী ও বিচারকদের উদ্দেশ্য একটাই- স্বল্প সময়ে ও স্বল্প খরচে সমাজে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করা। নইলে বছরের পর বছর মাসের পর মাস বিচারপ্রার্থীরা আদালতের বারান্দায় ঘুরে বেড়াবেন এবং বলবেন, এ দেশে বিচার নাই। তাহলে দায়ী হবে সিস্টেম, আইনজীবী ও বিচারক।

তিনি আইনজীবী ও বিচারকদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা আছেন বলেই পৃথিবীতে এখনো শৃঙ্খলা আছে, ন্যায্যতা আছে। কেউ আইনি সমস্যায় পড়লে সরাসরি আপনাদের সঙ্গেই আগে কথা বলে। আপনারাই বিচারপ্রার্থীদের প্রতিনিধি হিসেবে তাদের অন্যায়, অশুভ ও অমঙ্গলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেন।

এর আগে প্রধান বিচারপতি আদালত প্রাঙ্গণে বিচার প্রার্থীদের ন্যায়কুঞ্জ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন এবং আলোচনা সভার শুরুতেই প্রয়াত আইনজীবীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জোব্দুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি এম ইয়ায়েতুর রহিম ও আইন কমিশনের সদস্য বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীর।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ফিন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রবিউল আলম বুদু, জেলা ও দায়রা জজ আদীব আলী, নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনালের বিচারক নরেশচন্দ্র সরকার, সিনিয়র আইনজীবী শাহাজাহান আলী, বারের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান কনক প্রমুখ।