ঢাকা , শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo বেইলি রোডে অগ্নিকান্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬, দগ্ধরাও সংকটাপন্ন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী Logo সাত প্রতিমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ Logo আলো ঝলমলে রাতে বিপিএলের চ্যাম্পিয়ন বরিশাল Logo ফতুল্লায় নাসিম ওসমান স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণ Logo সোনারগাঁয়ের মোগরাপাড়া চৌরাস্তা এলাকায় ফুট ওভার ব্রীজ হকার মুক্ত করলেন এম পি কাউসার হাসনাত Logo নাঃগঞ্জে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বইমেলায় কবিদের উত্তরীয় দিয়ে বরণ Logo সিদ্ধিরগঞ্জ পাওয়ার হাউজ স্কুলে ভর্তি বানিজ্য, ভর্তিতে অনিশ্চিত জমজ শিশু, প্রধান প্রকৌশলীর বদলির দাবি Logo উপজেলা নির্বাচনে সবার সহযোগিতা ও দোয়া চাইলেন মাকসুদ চেয়ারম্যান Logo বৃহত্তম মদনগঞ্জ পেশাজীবি শ্রমিক কল্যান সংগঠন’র ৫ ম বারের মতো বিনামূল্যে সুন্নতে খাৎনা অনুষ্ঠিত Logo বন্দরে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা ও স্বামী গুরুত্বর জখমের ঘটনায় মা ও ছেলে আটক

বিএনপির ১৯ নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ছাত্রদলের সাবেক সদস্য কামরুল আহসান, কাউন্সিলর প্রার্থী মহানগর বিএনপির তিন যুগ্ম আহ্বায়ক ও চার সদস্যসহ ১৯ জনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে কেন সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, তা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে লিখিত আকারে জানাতে বলা হয়েছে। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত চিঠিতে এসব কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১ জুন) রাত ১১টায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন মহানগর বিএনপির দফতরের দায়িত্বে থাকা জাহিদুল ইসলাম রিপন। এর আগে রাত ১০টার দিকে ১৯ জনের হোয়াটসঅ্যাপে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে।

চিঠিপ্রাপ্তরা হলেন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান টিপু, যুগ্ম আহ্বায়ক শাহ আমিনুল ইসলাম, হারুন অর রশিদ, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সেলিম হাওলাদার এবং মহানগর যুবদলের সহসভাপতি হুমায়ুন কবির।

সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জেসমীন সামাদ, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সেলিনা বেগম, রাশিদা পারভীন ও জাহানারা বেগম। বাকিরা ওয়ার্ড বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের বর্তমান ও সাবেক নেতা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কাউন্সিলর প্রার্থী হাবিবুর রহমান টিপু বলেন, রাত সাড়ে ১০টার দিকে হোয়াটসঅ্যাপে কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়েছি। তবে এই চিঠির কোনও জবাব দেবো না আমি।

তবে চিঠির জবাব দেবেন বলে জানিয়েছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী কামরুল আহসান রুপন। তিনি বলেন, আমার বাবা মরহুম আহসান হাবিব কামাল বরিশাল পৌরসভার কমিশনার থেকে চেয়ারম্যান ও সিটি মেয়র হয়েছেন। তিনি বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি ছিলেন। এ কারণে নগরবাসী থেকে শুরু করে বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকদের চাপে মেয়র প্রার্থী হয়েছি। তবে বিএনপিতে আমার পদ নেই। কাজেই শোকজের কারণ দেখি না।

তিনি আরও বলেন, ২৬ মে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিন ছিল। এই সময়ের মধ্যে বিএনপি থেকে কোনও ধরনের বার্তা দেওয়া হয়নি। দেওয়া হলে হয়তো নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর চিন্তা করতাম। এখন যখন শোকজ লেটার পেয়েছি, এর জবাব দেবো।

দলের যারা নির্বাচন করবে তাদের আবারও বহিষ্কারের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব মীর জাহিদুল করিব জাহিদ। তিনি বলেন, দেশের মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিতে এবং নিরপেক্ষ সরকারের অধীন নির্বাচনের জন্য আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে বিএনপি। এমনকি এই সরকারের অধীন কোনও নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে না। এ কারণে বরিশাল সিটি নির্বাচন বয়কট করা হয়। এরপরও যারা প্রার্থী হয়ে

প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন তাদের আজীবনের জন্য বহিষ্কারের সুপারিশ করা হয়েছে। এর আগে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে যারা প্রার্থী হয়েছিলেন তাদের ব্যাপারে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হয়েছে। বরিশালের নির্বাচনে যারা অংশ নিয়েছেন তাদের বেলায়ও একই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে।

এর আগে দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাউন্সিলর পদ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেওয়া প্রার্থীরা হলেন ২২নং ওয়ার্ড থেকে মহানগর বিএনপির সদস্য আ.ন.ম. সাইফুল আহসান আজিম, একই ওয়ার্ড থেকে জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিবুল্লাহ, ৫নং ওয়ার্ড থেকে মাইনুল হক, ১নং ওয়ার্ড থেকে সাইদুল হাসান মামুন ও ২৬নং ওয়ার্ড থেকে জিয়াউর রহমান।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

বেইলি রোডে অগ্নিকান্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬, দগ্ধরাও সংকটাপন্ন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিএনপির ১৯ নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

আপডেট সময় ০৪:২৯:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২ জুন ২০২৩

বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ছাত্রদলের সাবেক সদস্য কামরুল আহসান, কাউন্সিলর প্রার্থী মহানগর বিএনপির তিন যুগ্ম আহ্বায়ক ও চার সদস্যসহ ১৯ জনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে কেন সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, তা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে লিখিত আকারে জানাতে বলা হয়েছে। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত চিঠিতে এসব কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১ জুন) রাত ১১টায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন মহানগর বিএনপির দফতরের দায়িত্বে থাকা জাহিদুল ইসলাম রিপন। এর আগে রাত ১০টার দিকে ১৯ জনের হোয়াটসঅ্যাপে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে।

চিঠিপ্রাপ্তরা হলেন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান টিপু, যুগ্ম আহ্বায়ক শাহ আমিনুল ইসলাম, হারুন অর রশিদ, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সেলিম হাওলাদার এবং মহানগর যুবদলের সহসভাপতি হুমায়ুন কবির।

সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জেসমীন সামাদ, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সেলিনা বেগম, রাশিদা পারভীন ও জাহানারা বেগম। বাকিরা ওয়ার্ড বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের বর্তমান ও সাবেক নেতা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কাউন্সিলর প্রার্থী হাবিবুর রহমান টিপু বলেন, রাত সাড়ে ১০টার দিকে হোয়াটসঅ্যাপে কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়েছি। তবে এই চিঠির কোনও জবাব দেবো না আমি।

তবে চিঠির জবাব দেবেন বলে জানিয়েছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী কামরুল আহসান রুপন। তিনি বলেন, আমার বাবা মরহুম আহসান হাবিব কামাল বরিশাল পৌরসভার কমিশনার থেকে চেয়ারম্যান ও সিটি মেয়র হয়েছেন। তিনি বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি ছিলেন। এ কারণে নগরবাসী থেকে শুরু করে বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকদের চাপে মেয়র প্রার্থী হয়েছি। তবে বিএনপিতে আমার পদ নেই। কাজেই শোকজের কারণ দেখি না।

তিনি আরও বলেন, ২৬ মে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিন ছিল। এই সময়ের মধ্যে বিএনপি থেকে কোনও ধরনের বার্তা দেওয়া হয়নি। দেওয়া হলে হয়তো নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর চিন্তা করতাম। এখন যখন শোকজ লেটার পেয়েছি, এর জবাব দেবো।

দলের যারা নির্বাচন করবে তাদের আবারও বহিষ্কারের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব মীর জাহিদুল করিব জাহিদ। তিনি বলেন, দেশের মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিতে এবং নিরপেক্ষ সরকারের অধীন নির্বাচনের জন্য আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে বিএনপি। এমনকি এই সরকারের অধীন কোনও নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে না। এ কারণে বরিশাল সিটি নির্বাচন বয়কট করা হয়। এরপরও যারা প্রার্থী হয়ে

প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন তাদের আজীবনের জন্য বহিষ্কারের সুপারিশ করা হয়েছে। এর আগে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে যারা প্রার্থী হয়েছিলেন তাদের ব্যাপারে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হয়েছে। বরিশালের নির্বাচনে যারা অংশ নিয়েছেন তাদের বেলায়ও একই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে।

এর আগে দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাউন্সিলর পদ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেওয়া প্রার্থীরা হলেন ২২নং ওয়ার্ড থেকে মহানগর বিএনপির সদস্য আ.ন.ম. সাইফুল আহসান আজিম, একই ওয়ার্ড থেকে জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিবুল্লাহ, ৫নং ওয়ার্ড থেকে মাইনুল হক, ১নং ওয়ার্ড থেকে সাইদুল হাসান মামুন ও ২৬নং ওয়ার্ড থেকে জিয়াউর রহমান।