ঢাকা , শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘নেভার কুসেন’ থেকে লেভারকুসেন

উৎসবের মঞ্চ প্রস্তুত ছিল জাবি আলোনসো ও তার অপ্রতিরোধ্য শিষ্যদের জন্য। কানায় কানায় পূর্ণ স্টেডিয়ামে তারা মেলে ধরল মৌসুমজুড়ে দেখিয়ে চলা দুর্দান্ত ফুটবলের প্রতিচ্ছবি। সেই দাপটে ছারখার হয়ে গেল প্রতিপক্ষ। অবসান হলো বায়ার্ন মিউনিখের টানা ১১ বছরের রাজত্বের। প্রথমবারের মতো জার্মান বুন্দেসলিগার শিরোপা জয়ের সীমাহীন আনন্দে মাতোয়ারা হলো বেয়ার লেভারকুসেন। গতপরশু রাতে ঘরের মাঠ বে অ্যারেনায় ভের্দার ব্রেমেনকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে লেভারকুসেন। প্রথমার্ধে পেনাল্টি থেকে ভিক্টর বোনিফেসের লক্ষ্যভেদে এগিয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে একচ্ছত্র আধিপত্য দেখায় ক্লাবটি। গ্রানিত জাকা ব্যবধান দ্বিগুণ করার পর হ্যাটট্রিকের স্বাদ নেন তরুণ জার্মান ফরোয়ার্ড ফ্লোরিয়ান ভিরৎজ।
পাঁচ ম্যাচ হাতে রেখেই চ্যাম্পিয়ন হলো চলতি মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এখন পর্যন্ত অপরাজিত থাকা লেভারকুসেন। ২৯ ম্যাচে ২৫ জয় ও ৪ ড্রতে তাদের অর্জন ৭৯ পয়েন্ট। সমান ম্যাচ খেলে দুইয়ে থেকে বায়ার্ন পেয়েছে ৬৩ পয়েন্ট। গোল ব্যবধানে পিছিয়ে থাকা ভিএফবি স্টুটগার্টের পয়েন্টও ২৯ ম্যাচে ৬৩। বুন্দেসলিগার গত ১১ মৌসুমের প্রতিটিতেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বায়ার্ন। বিষয়টা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছিল যে, ১৮টি ক্লাব লিগ শুরু করবে এবং শেষে শিরোপার উল্লাস করবে বাভারিয়ানরা। সেই ধারায় এবার ছেদ টানল লেভারকুসেন।
‘নেভার-কুসেন’ বলে একটি অনাকাক্সিক্ষত তকমা জড়িয়ে আছে লেভারকুসেনের সঙ্গে। ইংরেজি শব্দ ‘নেভার’ বলতে বাংলায় বোঝায় ‘কখনোই না’। প্রায় ১২০ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত ক্লাবটির বুন্দেসলিগাসহ অন্যান্য শিরোপা জিততে না পারার দিকে ইঙ্গিত করতেই এটি ব্যবহার করে আসছেন নিন্দুকেরা। এর আগে মোট পাঁচবার তারা রানার্সআপ হয়েছিল বুন্দেসলিগায়। এর মধ্যে রয়েছে সেই ‘অভিশপ্ত’ ২০০১-০২ মৌসুম। সেবার বুন্দেসলিগায় দ্বিতীয় হওয়ার পাশাপাশি জার্মান কাপ ও উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রানার্সআপ হয়েছিল লেভারকুসেন। অর্থাৎ এক মৌসুমেই তিনটি শিরোপা হয়েছিল হাতছাড়া। লেভারকুসেনের কোচ হওয়ার পর স্রেফ দ্বিতীয় মৌসুমেই সেই তকমা মুছে দিলেন বিশ্বকাপজয়ী সাবেক স্প্যানিশ মিডফিল্ডার আলোনসো।
এর আগে কোনো শিরোপাই যে লেভারকুসেন জেতেনি তা নয়। তবে সংখ্যার হিসেবে মাত্র দুটি। ১৯৯২-৯৩ মৌসুমে তারা উঁচিয়ে ধরেছিল ডিএফবি-পোকাল (জার্মান কাপ)। তারও পাঁচ বছর আগে তারা জিতেছিল উয়েফা কাপ (বর্তমান উয়েফা ইউরোপা লিগ)। অর্থাৎ ৩১ বছর ধরে শিরোপাখরায় ভুগছিল তারা। সেই ব্যর্থতার শিকল এবার ভাঙা পড়ল। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে বুন্দেসলিগার কোনো মৌসুমে টানা ২৯ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ড গড়ল লেভারকুসেন। কোচ পেপ গার্দিওলার অধীনে ২০১৫-১৬ মৌসুমে টানা ২৮ ম্যাচ না হারার আগের কীর্তিটি গড়েছিল বায়ার্ন।
আরও একটি রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছে লেভারকুসেন। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে চলমান মৌসুমে এখন পর্যন্ত ৪৩ ম্যাচ অপরাজিত তারা। ২০১১-১২ মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে টানা সমান সংখ্যক ম্যাচ অপরাজিত থাকার কীর্তিটি প্রথম ক্লাব হিসেবে গড়েছিল ইতালির জুভেন্তাস। এমন অর্জনের পর কী উচ্ছ¡াসেই না ভেসে যাচ্ছে পুরো লেভারকুসেন শহর! এ শহরেরই ফুটবল ক্লাব বেয়ার লেভারকুসেন, যারা নিজেদের ১২০ বছরের ইতিহাসে এর আগে কখনো পায়নি জার্মান বুন্দেসলিগার স্বাদ, সেই লেভারকুসেনকেই ৫ ম্যাচ হাতে রেখে প্রথমবারের মতো বুন্দেসলিগার শিরোপা জিতিয়ে যেন ‘অমরত্ব’কেই আলিঙ্গন করেছেন দলটির স্প্যানিশ কোচ জাবি আলোনসো। এরপর লেভারকুসেনের সমর্থক, খেলোয়াড়, কোচিং স্টাফ, শহরের সাধারণ মানুষ- সবাই ভাসছে আন্দে। এই আনন্দের মধ্যেই জাবি সবাইকে মনে করিয়ে দিয়েছেন, এখনো অবশিষ্ট কাজ আছে, সবকিছু পাওয়া হয়ে যায়নি।
ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে আলোনসো যখন কথা বলছিলেন, হঠাৎই সংবাদ সম্মেলনকক্ষে ঢুকে পড়ে তার খেলোয়াড়েরা। বিয়ারের ফোয়ারায় তাঁকে ভিজিয়ে দেন তারা।বিয়ারে ভিজতে ভিজতেই জাবি বললেন, ‘এখনো সবকিছু পাওয়া হয়ে যায়নি। দেখব, আমরা কত দ‚র যেতে পারি। এটা ভেবে আমার খুব ভালো লাগছে।’ আরও সাফল্যের বিষয়টি মনে করিয়ে দিলেও আপাতত যা পেয়েছেন, সেটা তার খেলোয়াড়দের উপভোগও করতে দিতে চান আলোনসো, ‘আমরা এখনো যা কিছু আছে, তা অর্জন করতে চাই। কিন্তু তা নিয়ে আমরা মঙ্গলবার ভাবতে পারি। আজ (গতপরশু) এবং আগামীকাল (গতকাল) আমরা উদযাপন করতে চাই।’

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

‘নেভার কুসেন’ থেকে লেভারকুসেন

আপডেট সময় ০৫:৩৭:০৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

উৎসবের মঞ্চ প্রস্তুত ছিল জাবি আলোনসো ও তার অপ্রতিরোধ্য শিষ্যদের জন্য। কানায় কানায় পূর্ণ স্টেডিয়ামে তারা মেলে ধরল মৌসুমজুড়ে দেখিয়ে চলা দুর্দান্ত ফুটবলের প্রতিচ্ছবি। সেই দাপটে ছারখার হয়ে গেল প্রতিপক্ষ। অবসান হলো বায়ার্ন মিউনিখের টানা ১১ বছরের রাজত্বের। প্রথমবারের মতো জার্মান বুন্দেসলিগার শিরোপা জয়ের সীমাহীন আনন্দে মাতোয়ারা হলো বেয়ার লেভারকুসেন। গতপরশু রাতে ঘরের মাঠ বে অ্যারেনায় ভের্দার ব্রেমেনকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে লেভারকুসেন। প্রথমার্ধে পেনাল্টি থেকে ভিক্টর বোনিফেসের লক্ষ্যভেদে এগিয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে একচ্ছত্র আধিপত্য দেখায় ক্লাবটি। গ্রানিত জাকা ব্যবধান দ্বিগুণ করার পর হ্যাটট্রিকের স্বাদ নেন তরুণ জার্মান ফরোয়ার্ড ফ্লোরিয়ান ভিরৎজ।
পাঁচ ম্যাচ হাতে রেখেই চ্যাম্পিয়ন হলো চলতি মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এখন পর্যন্ত অপরাজিত থাকা লেভারকুসেন। ২৯ ম্যাচে ২৫ জয় ও ৪ ড্রতে তাদের অর্জন ৭৯ পয়েন্ট। সমান ম্যাচ খেলে দুইয়ে থেকে বায়ার্ন পেয়েছে ৬৩ পয়েন্ট। গোল ব্যবধানে পিছিয়ে থাকা ভিএফবি স্টুটগার্টের পয়েন্টও ২৯ ম্যাচে ৬৩। বুন্দেসলিগার গত ১১ মৌসুমের প্রতিটিতেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বায়ার্ন। বিষয়টা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছিল যে, ১৮টি ক্লাব লিগ শুরু করবে এবং শেষে শিরোপার উল্লাস করবে বাভারিয়ানরা। সেই ধারায় এবার ছেদ টানল লেভারকুসেন।
‘নেভার-কুসেন’ বলে একটি অনাকাক্সিক্ষত তকমা জড়িয়ে আছে লেভারকুসেনের সঙ্গে। ইংরেজি শব্দ ‘নেভার’ বলতে বাংলায় বোঝায় ‘কখনোই না’। প্রায় ১২০ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত ক্লাবটির বুন্দেসলিগাসহ অন্যান্য শিরোপা জিততে না পারার দিকে ইঙ্গিত করতেই এটি ব্যবহার করে আসছেন নিন্দুকেরা। এর আগে মোট পাঁচবার তারা রানার্সআপ হয়েছিল বুন্দেসলিগায়। এর মধ্যে রয়েছে সেই ‘অভিশপ্ত’ ২০০১-০২ মৌসুম। সেবার বুন্দেসলিগায় দ্বিতীয় হওয়ার পাশাপাশি জার্মান কাপ ও উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রানার্সআপ হয়েছিল লেভারকুসেন। অর্থাৎ এক মৌসুমেই তিনটি শিরোপা হয়েছিল হাতছাড়া। লেভারকুসেনের কোচ হওয়ার পর স্রেফ দ্বিতীয় মৌসুমেই সেই তকমা মুছে দিলেন বিশ্বকাপজয়ী সাবেক স্প্যানিশ মিডফিল্ডার আলোনসো।
এর আগে কোনো শিরোপাই যে লেভারকুসেন জেতেনি তা নয়। তবে সংখ্যার হিসেবে মাত্র দুটি। ১৯৯২-৯৩ মৌসুমে তারা উঁচিয়ে ধরেছিল ডিএফবি-পোকাল (জার্মান কাপ)। তারও পাঁচ বছর আগে তারা জিতেছিল উয়েফা কাপ (বর্তমান উয়েফা ইউরোপা লিগ)। অর্থাৎ ৩১ বছর ধরে শিরোপাখরায় ভুগছিল তারা। সেই ব্যর্থতার শিকল এবার ভাঙা পড়ল। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে বুন্দেসলিগার কোনো মৌসুমে টানা ২৯ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ড গড়ল লেভারকুসেন। কোচ পেপ গার্দিওলার অধীনে ২০১৫-১৬ মৌসুমে টানা ২৮ ম্যাচ না হারার আগের কীর্তিটি গড়েছিল বায়ার্ন।
আরও একটি রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছে লেভারকুসেন। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে চলমান মৌসুমে এখন পর্যন্ত ৪৩ ম্যাচ অপরাজিত তারা। ২০১১-১২ মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে টানা সমান সংখ্যক ম্যাচ অপরাজিত থাকার কীর্তিটি প্রথম ক্লাব হিসেবে গড়েছিল ইতালির জুভেন্তাস। এমন অর্জনের পর কী উচ্ছ¡াসেই না ভেসে যাচ্ছে পুরো লেভারকুসেন শহর! এ শহরেরই ফুটবল ক্লাব বেয়ার লেভারকুসেন, যারা নিজেদের ১২০ বছরের ইতিহাসে এর আগে কখনো পায়নি জার্মান বুন্দেসলিগার স্বাদ, সেই লেভারকুসেনকেই ৫ ম্যাচ হাতে রেখে প্রথমবারের মতো বুন্দেসলিগার শিরোপা জিতিয়ে যেন ‘অমরত্ব’কেই আলিঙ্গন করেছেন দলটির স্প্যানিশ কোচ জাবি আলোনসো। এরপর লেভারকুসেনের সমর্থক, খেলোয়াড়, কোচিং স্টাফ, শহরের সাধারণ মানুষ- সবাই ভাসছে আন্দে। এই আনন্দের মধ্যেই জাবি সবাইকে মনে করিয়ে দিয়েছেন, এখনো অবশিষ্ট কাজ আছে, সবকিছু পাওয়া হয়ে যায়নি।
ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে আলোনসো যখন কথা বলছিলেন, হঠাৎই সংবাদ সম্মেলনকক্ষে ঢুকে পড়ে তার খেলোয়াড়েরা। বিয়ারের ফোয়ারায় তাঁকে ভিজিয়ে দেন তারা।বিয়ারে ভিজতে ভিজতেই জাবি বললেন, ‘এখনো সবকিছু পাওয়া হয়ে যায়নি। দেখব, আমরা কত দ‚র যেতে পারি। এটা ভেবে আমার খুব ভালো লাগছে।’ আরও সাফল্যের বিষয়টি মনে করিয়ে দিলেও আপাতত যা পেয়েছেন, সেটা তার খেলোয়াড়দের উপভোগও করতে দিতে চান আলোনসো, ‘আমরা এখনো যা কিছু আছে, তা অর্জন করতে চাই। কিন্তু তা নিয়ে আমরা মঙ্গলবার ভাবতে পারি। আজ (গতপরশু) এবং আগামীকাল (গতকাল) আমরা উদযাপন করতে চাই।’