ঢাকা , বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিজ ঘরে নারীকে গলা কেটে হত্যা, স্বামী-ভাশুরসহ আটক ৪

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরের গুডুম্বা গ্রামে পান্না বেগম (৩০) নামে এক নারীকে নিজ বাড়িতে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় স্বামী, ভাশুর, জাসহ চার জনকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার রায়কালী ইউনিয়নের গুডুম্বা পূর্বপাড়া গ্রামে এ ঘটনার পর ভোরে পুলিশ তাদের আটক করে।

নিহত গৃহবধূ পান্না বেগম (৩০) গুডুম্বা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার রাতে সিরাজুল ইসলাম শবে বরাতের রাতে ইবাদতের জন্য গ্রামের মসজিদে যান। রাত ১০টার দিকে ফিরে ঘরে স্ত্রীর গলাকাটা লাশ দেখতে পেয়ে চিৎকার করেন। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা সেখানে যান এবং পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে।

গুডুম্বা গ্রামের বাসিন্দা সেলিম হোসেন বলেন, ‘ঘটনার পর গ্রামবাসী ছুটে এসে ঘরের ভেতর সিরাজুলের স্ত্রীর গলা কাটা লাশ দেখতে পান। তারা থানা-পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে নিহতের স্বামী, ভাশুর ও জাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। আর হত্যার কাজে ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করে।’

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘ঘটনাস্থলে পৌঁছে ঘরের মেঝেতে গৃহবধূর পরনের কাপড় ও ঘরের জিনিসপত্র এলোমেলো অবস্থায় মরদেহ ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখি। সিরাজুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদে সন্দেহ হয়। পরে অধিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীকে হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করে। পরে স্বামী সিরাজুল ইসলাম তাঁর ভাই, ভাবী ও প্রতিবেশী একজনকে আটক করা হয়।’

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

নিজ ঘরে নারীকে গলা কেটে হত্যা, স্বামী-ভাশুরসহ আটক ৪

আপডেট সময় ০৪:২৯:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মার্চ ২০২৩

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরের গুডুম্বা গ্রামে পান্না বেগম (৩০) নামে এক নারীকে নিজ বাড়িতে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় স্বামী, ভাশুর, জাসহ চার জনকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার রায়কালী ইউনিয়নের গুডুম্বা পূর্বপাড়া গ্রামে এ ঘটনার পর ভোরে পুলিশ তাদের আটক করে।

নিহত গৃহবধূ পান্না বেগম (৩০) গুডুম্বা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার রাতে সিরাজুল ইসলাম শবে বরাতের রাতে ইবাদতের জন্য গ্রামের মসজিদে যান। রাত ১০টার দিকে ফিরে ঘরে স্ত্রীর গলাকাটা লাশ দেখতে পেয়ে চিৎকার করেন। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা সেখানে যান এবং পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে।

গুডুম্বা গ্রামের বাসিন্দা সেলিম হোসেন বলেন, ‘ঘটনার পর গ্রামবাসী ছুটে এসে ঘরের ভেতর সিরাজুলের স্ত্রীর গলা কাটা লাশ দেখতে পান। তারা থানা-পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে নিহতের স্বামী, ভাশুর ও জাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। আর হত্যার কাজে ব্যবহৃত ছুরি উদ্ধার করে।’

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘ঘটনাস্থলে পৌঁছে ঘরের মেঝেতে গৃহবধূর পরনের কাপড় ও ঘরের জিনিসপত্র এলোমেলো অবস্থায় মরদেহ ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখি। সিরাজুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদে সন্দেহ হয়। পরে অধিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীকে হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করে। পরে স্বামী সিরাজুল ইসলাম তাঁর ভাই, ভাবী ও প্রতিবেশী একজনকে আটক করা হয়।’