ঢাকা , শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo বেইলি রোডে অগ্নিকান্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬, দগ্ধরাও সংকটাপন্ন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী Logo সাত প্রতিমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ Logo আলো ঝলমলে রাতে বিপিএলের চ্যাম্পিয়ন বরিশাল Logo ফতুল্লায় নাসিম ওসমান স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণ Logo সোনারগাঁয়ের মোগরাপাড়া চৌরাস্তা এলাকায় ফুট ওভার ব্রীজ হকার মুক্ত করলেন এম পি কাউসার হাসনাত Logo নাঃগঞ্জে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বইমেলায় কবিদের উত্তরীয় দিয়ে বরণ Logo সিদ্ধিরগঞ্জ পাওয়ার হাউজ স্কুলে ভর্তি বানিজ্য, ভর্তিতে অনিশ্চিত জমজ শিশু, প্রধান প্রকৌশলীর বদলির দাবি Logo উপজেলা নির্বাচনে সবার সহযোগিতা ও দোয়া চাইলেন মাকসুদ চেয়ারম্যান Logo বৃহত্তম মদনগঞ্জ পেশাজীবি শ্রমিক কল্যান সংগঠন’র ৫ ম বারের মতো বিনামূল্যে সুন্নতে খাৎনা অনুষ্ঠিত Logo বন্দরে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা ও স্বামী গুরুত্বর জখমের ঘটনায় মা ও ছেলে আটক

দুটি ভোল মাছ ১৮ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি

বঙ্গোপসাগরের দুবলার চর এলাকায় এক জেলের জালে ধরা পড়েছে বড় আকারের দুটি ভোল মাছ। ১৮ লাখ ৫০ হাজার টাকায় মাছ দুটি বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে একটির ওজন ৩৬ কেজি ৫০০ গ্রাম, আরেকটির ওজন ২৭ কেজি।

দুবলার চর থেকে মাছ দুটি কিনে শনিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকালে মোংলা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে নিয়ে আসেন ‘মেসার্স জয়মনি ফিস’ আড়তের মালিক আল আমিন। এ সময় মাছ দুটি দেখতে ভিড় জমান উৎসুক লোকজন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে জেলে ফারুক হোসেনের জালে মাছ দুটি ধরা পড়েছিল।

জেলে ফারুক হোসেন জানিয়েছেন, গত অক্টোবরের প্রথম দিকে দুবলার চরসহ পাঁচটি চারাঞ্চলে শুঁটকির তৈরির মাছ আহরণে যান মোংলার জয়মনির ঘোল এলাকার জেলে ফারুক হোসেন। শুঁটকির মৌসুম এখন শেষপর্যায়ে। এতদিন ফারুকের জালে তেমন বড় মাছ ধরা না পড়লেও বৃহস্পতিবার দুটি বড় ভোল মাছ ধরা পড়ে। ওই দিন শেষরাতে জাল উঠিয়ে মাছ দুটি দুবলার চরের মৎস্য আড়তে নিলামে তোলা হয়।

নিলামে ২০-২৫ জন অংশ নেন। সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে মোংলা বাজারের মাছ ব্যবসায়ী আল আমিন ১৮ লাখ ৫০ হাজার টাকায় মাছ দুটি পান। এর মধ্যে বড় মাছটির ওজন ৩৬ কেজি ৫০০ গ্রাম, দাম পড়েছে ১১ লাখ। ছোট মাছটির ওজন ২৭ কেজি, দাম পড়েছে সাত লাখ ৫০ হাজার টাকা। প্রতি কেজি মাছের দাম পড়েছে ২৯ হাজার ১৩৩ টাকা।

ব্যবসায়ী আল আমিন জানিয়েছেন, মাছ দুটি সঠিক পদ্ধতিতে প্রসেসিং ও প্যাকেটজাত করে চট্টগ্রামের মাছের আড়তে পাঠানো হয়েছে।

মোংলা মৎস্য সমবায় সমিতির সভাপতি মো. আফজাল ফরাজী বলেন, ‘ভোল মাছ এই অঞ্চলে খুব কম পাওয়া যায়। পশুর নদী বা সুন্দরবন সংলগ্ন নদীতে আগে পাওয়া গেলেও এখন দুর্বৃত্তরা বিষ দিয়ে মাছ ধরায় পাওয়া যায় না। এজন্য আমাদের আড়তেও আসে না। দুবলার চরে পাওয়া মাছ দুটি আড়তে এসেছে। সেগুলো চট্টগ্রামে পাঠানো হয়েছে। সেখানে আরও বেশি দাম পাওয়া যাবে।’

তিনি বলেন, ‘ভোল মাছের ফুলকি ও পটকার দাম প্রচুর। এই মাছের পটকা ও বালিশ রফতানি হয়। শুনেছি এসব দিয়ে মেডিসিন তৈরি করা হয়।’

সামুদ্রিক ভোল মাছ খুবই দামি বলে উল্লেখ করেছেন মোংলা উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম। কারণ হিসেবে তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এই মাছের বায়ুথলি দিয়ে এক ধরনের সুতা তৈরি করা হয়। এই সুতা বিদেশে ওপেন হার্ট সার্জারির কাজে লাগে। এছাড়া বিয়ার তৈরির কাজেও ব্যবহৃত হয়।’

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

বেইলি রোডে অগ্নিকান্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬, দগ্ধরাও সংকটাপন্ন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দুটি ভোল মাছ ১৮ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি

আপডেট সময় ০৪:০০:১১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

বঙ্গোপসাগরের দুবলার চর এলাকায় এক জেলের জালে ধরা পড়েছে বড় আকারের দুটি ভোল মাছ। ১৮ লাখ ৫০ হাজার টাকায় মাছ দুটি বিক্রি হয়েছে। এর মধ্যে একটির ওজন ৩৬ কেজি ৫০০ গ্রাম, আরেকটির ওজন ২৭ কেজি।

দুবলার চর থেকে মাছ দুটি কিনে শনিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকালে মোংলা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে নিয়ে আসেন ‘মেসার্স জয়মনি ফিস’ আড়তের মালিক আল আমিন। এ সময় মাছ দুটি দেখতে ভিড় জমান উৎসুক লোকজন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে জেলে ফারুক হোসেনের জালে মাছ দুটি ধরা পড়েছিল।

জেলে ফারুক হোসেন জানিয়েছেন, গত অক্টোবরের প্রথম দিকে দুবলার চরসহ পাঁচটি চারাঞ্চলে শুঁটকির তৈরির মাছ আহরণে যান মোংলার জয়মনির ঘোল এলাকার জেলে ফারুক হোসেন। শুঁটকির মৌসুম এখন শেষপর্যায়ে। এতদিন ফারুকের জালে তেমন বড় মাছ ধরা না পড়লেও বৃহস্পতিবার দুটি বড় ভোল মাছ ধরা পড়ে। ওই দিন শেষরাতে জাল উঠিয়ে মাছ দুটি দুবলার চরের মৎস্য আড়তে নিলামে তোলা হয়।

নিলামে ২০-২৫ জন অংশ নেন। সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে মোংলা বাজারের মাছ ব্যবসায়ী আল আমিন ১৮ লাখ ৫০ হাজার টাকায় মাছ দুটি পান। এর মধ্যে বড় মাছটির ওজন ৩৬ কেজি ৫০০ গ্রাম, দাম পড়েছে ১১ লাখ। ছোট মাছটির ওজন ২৭ কেজি, দাম পড়েছে সাত লাখ ৫০ হাজার টাকা। প্রতি কেজি মাছের দাম পড়েছে ২৯ হাজার ১৩৩ টাকা।

ব্যবসায়ী আল আমিন জানিয়েছেন, মাছ দুটি সঠিক পদ্ধতিতে প্রসেসিং ও প্যাকেটজাত করে চট্টগ্রামের মাছের আড়তে পাঠানো হয়েছে।

মোংলা মৎস্য সমবায় সমিতির সভাপতি মো. আফজাল ফরাজী বলেন, ‘ভোল মাছ এই অঞ্চলে খুব কম পাওয়া যায়। পশুর নদী বা সুন্দরবন সংলগ্ন নদীতে আগে পাওয়া গেলেও এখন দুর্বৃত্তরা বিষ দিয়ে মাছ ধরায় পাওয়া যায় না। এজন্য আমাদের আড়তেও আসে না। দুবলার চরে পাওয়া মাছ দুটি আড়তে এসেছে। সেগুলো চট্টগ্রামে পাঠানো হয়েছে। সেখানে আরও বেশি দাম পাওয়া যাবে।’

তিনি বলেন, ‘ভোল মাছের ফুলকি ও পটকার দাম প্রচুর। এই মাছের পটকা ও বালিশ রফতানি হয়। শুনেছি এসব দিয়ে মেডিসিন তৈরি করা হয়।’

সামুদ্রিক ভোল মাছ খুবই দামি বলে উল্লেখ করেছেন মোংলা উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম। কারণ হিসেবে তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এই মাছের বায়ুথলি দিয়ে এক ধরনের সুতা তৈরি করা হয়। এই সুতা বিদেশে ওপেন হার্ট সার্জারির কাজে লাগে। এছাড়া বিয়ার তৈরির কাজেও ব্যবহৃত হয়।’