ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দাম্পত্য কলহে কক্সবাজারে হোটেলে স্ত্রী-সন্তানকে হত্যা: পুলিশ

কক্সবাজার শহরের কলাতলী হোটেল-মোটেল জোনের ‘সী আলিফ’ হোটেলের কক্ষ থেকে মেয়ে শিশুসহ নারীর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় স্বামী জেবিন দেবকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জেবিন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে এবং আট মাস বয়সী মেয়েকে বালতির পানিতে চুবিয়ে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছেন।

শনিবার (১৮ জানুয়ারি) বিকালে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য দিয়েছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম।

কক্সবাজার সদর মডেল থানায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, কক্সবাজারের ঘটনার পর অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে নিকটবর্তী থানায় খবর পাঠায় পুলিশ। ওই খবরের পরিপ্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম নতুন ব্রিজ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে জেবিন দেব স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানান, তিনি একজন প্রবাসী। পারিবারিকভাবে অসন্তোষ ছিল। তাদের সাংসারিক জীবনে কলহ লেগে ছিল এবং বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের নিয়ে স্ত্রীকে তিনি সন্দেহ করতেন। তাই তাদের সংসারে অশান্তি ও সম্পর্কের টানাপোড়েন ছিল। গত ৫ ফেব্রুয়ারি বিদেশ থেকে ফিরে আসেন তিনি। তিনি বিদেশ থেকে আসার পর গত ৭ ফেব্রুয়ারি একবার কক্সবাজার ঘুরে যান। ওই সময় জেবিন তার স্ত্রী ও ছোট মেয়েকে হত্যা করার পরিকল্পনা করেন। ১৪ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজারে এসে হোটেল সী আলিফে ওঠেন এবং স্ত্রী ও শিশুকন্যাকে হত্যা করেন।

এর আগে শুক্রবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৩টায় কলাতলীর সী আলিফ আবাসিক হোটেলের ৪১১ নম্বর কক্ষ থেকে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়।ৃ

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

দাম্পত্য কলহে কক্সবাজারে হোটেলে স্ত্রী-সন্তানকে হত্যা: পুলিশ

আপডেট সময় ০৪:৩৬:৪১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

কক্সবাজার শহরের কলাতলী হোটেল-মোটেল জোনের ‘সী আলিফ’ হোটেলের কক্ষ থেকে মেয়ে শিশুসহ নারীর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় স্বামী জেবিন দেবকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জেবিন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে এবং আট মাস বয়সী মেয়েকে বালতির পানিতে চুবিয়ে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছেন।

শনিবার (১৮ জানুয়ারি) বিকালে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য দিয়েছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম।

কক্সবাজার সদর মডেল থানায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, কক্সবাজারের ঘটনার পর অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে নিকটবর্তী থানায় খবর পাঠায় পুলিশ। ওই খবরের পরিপ্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম নতুন ব্রিজ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে জেবিন দেব স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জানান, তিনি একজন প্রবাসী। পারিবারিকভাবে অসন্তোষ ছিল। তাদের সাংসারিক জীবনে কলহ লেগে ছিল এবং বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের নিয়ে স্ত্রীকে তিনি সন্দেহ করতেন। তাই তাদের সংসারে অশান্তি ও সম্পর্কের টানাপোড়েন ছিল। গত ৫ ফেব্রুয়ারি বিদেশ থেকে ফিরে আসেন তিনি। তিনি বিদেশ থেকে আসার পর গত ৭ ফেব্রুয়ারি একবার কক্সবাজার ঘুরে যান। ওই সময় জেবিন তার স্ত্রী ও ছোট মেয়েকে হত্যা করার পরিকল্পনা করেন। ১৪ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজারে এসে হোটেল সী আলিফে ওঠেন এবং স্ত্রী ও শিশুকন্যাকে হত্যা করেন।

এর আগে শুক্রবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৩টায় কলাতলীর সী আলিফ আবাসিক হোটেলের ৪১১ নম্বর কক্ষ থেকে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়।ৃ