ঢাকা , শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দক্ষিণ আফ্রিকায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ বাংলাদেশি নিহত

সুদূর দক্ষিণ আফ্রিকায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আরও দুই বাংলাদেশি মারাত্মক আহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ৯টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আফ্রিকা অনুবিভাগের মহাপরিচালক মো. তারিকুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তারিকুল ইসলাম জানান, দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনের দিকে যাওয়ার পথেনবিউফোর্ট ওয়েস্ট শহরে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনাস্থলে ৫ জন নিহত হয়েছেন। আহত দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

দূতাবাসের বরাত দিয়ে মহাপরিচালক বলেন, দূতাবাস থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। দূতাবাস খোঁজ-খবর রাখছে।
এদিকে নিহতদের পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহতরা হলেন- ফেনী সদরের পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের ইসমাইল হোসেন (৩০), দাগনভূঞা উপজেলার দক্ষিণ জয়লস্কর ইউনিয়নের দক্ষিণ নেয়াজপুরের রাজু আহমেদ (৩৪), একই উপজেলার মাতুভুঞা ইউনিয়নের মো. মোস্তফা কামাল (৪০), সোনাগাজী উপজেলার চর মজলিসপুর ইউনিয়নের আবুল হোসেন (৪৫) ও তার ছেলে নাদিম হোসেন (১০)।

নিহতদের মধ্যে ফেনী সদর উপজেলার বিরলী গ্রামের আব্বাস বেপারী বাড়ির শরীয়ত উল্লার ছেলে ইসমাইল হোসেনের ভাই মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, দক্ষিণ আফ্রিকার আবদিন থেকে কেপটাউনের ফ্রান্স অ্যাম্বাসির উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন ইসমাইলসহ ৭ জন। পথিমধ্যে বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টার দিকে একটি চলন্ত লরির নিচে পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই পাঁচজন নিহত হন।

গুরুতর আহত অবস্থায় আনিসুল হক মিলনসহ আরও একজনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
স্থানীয় বাংলাদেশি এবং হতাহতদের আত্মীয়-স্বজনের তথ্য মতে, দেশে ফিরতে চাওয়া আনিসুল হক মিলনকেই কেপটাউন এয়ারপোর্টে বিদায় জানাতে যাওয়ার পথে মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি এখন গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
প্রবাসীরা জানান, দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে এর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় একসঙ্গে এত সংখ্যক বাংলাদেশির মৃত্যু কখনো ঘটেনি। এ ঘটনায় দেশটিতে বসবাস করা বাংলাদেশিদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

 

এদিকে, ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা আক্তার তানিয়া দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এবং একজন আহত হয়েছেন বলে জানান। ফেনী সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আনোয়ার হোসেন তার উপজেলার একজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
সোনাগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) একাধিকবার কল করলে পাওয়া যায়নি। তবে দাগনভূঞার জয়লস্কর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ মিলন জানান, তার ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী সোনাগাজী উপজেলায় দুজন মারা গেছেন।
নিহত ইসমাইল হোসেনের পিতা শরীয়ত উল্লাহ বলেন, আমার ছেলে ইসমাইল হোসেন অবিবাহিত। দুই মাস পরে দেশে ফিরলে তাকে বিয়ে করানোর প্রস্তুতি চলছিল। তিনি ১১ বছর ধরে দক্ষিণ আফ্রিকায় থাকেন। তিনি বলেন, আমার ছেলেকে হারিয়েছি তবে লাশটি দ্রুত চাই।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

দক্ষিণ আফ্রিকায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ বাংলাদেশি নিহত

আপডেট সময় ০৪:২৫:৪২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

সুদূর দক্ষিণ আফ্রিকায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আরও দুই বাংলাদেশি মারাত্মক আহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ৯টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আফ্রিকা অনুবিভাগের মহাপরিচালক মো. তারিকুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
তারিকুল ইসলাম জানান, দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনের দিকে যাওয়ার পথেনবিউফোর্ট ওয়েস্ট শহরে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনাস্থলে ৫ জন নিহত হয়েছেন। আহত দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

দূতাবাসের বরাত দিয়ে মহাপরিচালক বলেন, দূতাবাস থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। দূতাবাস খোঁজ-খবর রাখছে।
এদিকে নিহতদের পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহতরা হলেন- ফেনী সদরের পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের ইসমাইল হোসেন (৩০), দাগনভূঞা উপজেলার দক্ষিণ জয়লস্কর ইউনিয়নের দক্ষিণ নেয়াজপুরের রাজু আহমেদ (৩৪), একই উপজেলার মাতুভুঞা ইউনিয়নের মো. মোস্তফা কামাল (৪০), সোনাগাজী উপজেলার চর মজলিসপুর ইউনিয়নের আবুল হোসেন (৪৫) ও তার ছেলে নাদিম হোসেন (১০)।

নিহতদের মধ্যে ফেনী সদর উপজেলার বিরলী গ্রামের আব্বাস বেপারী বাড়ির শরীয়ত উল্লার ছেলে ইসমাইল হোসেনের ভাই মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, দক্ষিণ আফ্রিকার আবদিন থেকে কেপটাউনের ফ্রান্স অ্যাম্বাসির উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন ইসমাইলসহ ৭ জন। পথিমধ্যে বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টার দিকে একটি চলন্ত লরির নিচে পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই পাঁচজন নিহত হন।

গুরুতর আহত অবস্থায় আনিসুল হক মিলনসহ আরও একজনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
স্থানীয় বাংলাদেশি এবং হতাহতদের আত্মীয়-স্বজনের তথ্য মতে, দেশে ফিরতে চাওয়া আনিসুল হক মিলনকেই কেপটাউন এয়ারপোর্টে বিদায় জানাতে যাওয়ার পথে মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি এখন গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
প্রবাসীরা জানান, দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে এর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় একসঙ্গে এত সংখ্যক বাংলাদেশির মৃত্যু কখনো ঘটেনি। এ ঘটনায় দেশটিতে বসবাস করা বাংলাদেশিদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

 

এদিকে, ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা আক্তার তানিয়া দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এবং একজন আহত হয়েছেন বলে জানান। ফেনী সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আনোয়ার হোসেন তার উপজেলার একজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
সোনাগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) একাধিকবার কল করলে পাওয়া যায়নি। তবে দাগনভূঞার জয়লস্কর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ মিলন জানান, তার ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী সোনাগাজী উপজেলায় দুজন মারা গেছেন।
নিহত ইসমাইল হোসেনের পিতা শরীয়ত উল্লাহ বলেন, আমার ছেলে ইসমাইল হোসেন অবিবাহিত। দুই মাস পরে দেশে ফিরলে তাকে বিয়ে করানোর প্রস্তুতি চলছিল। তিনি ১১ বছর ধরে দক্ষিণ আফ্রিকায় থাকেন। তিনি বলেন, আমার ছেলেকে হারিয়েছি তবে লাশটি দ্রুত চাই।