ঢাকা , শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo বেইলি রোডে অগ্নিকান্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬, দগ্ধরাও সংকটাপন্ন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী Logo সাত প্রতিমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ Logo আলো ঝলমলে রাতে বিপিএলের চ্যাম্পিয়ন বরিশাল Logo ফতুল্লায় নাসিম ওসমান স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণ Logo সোনারগাঁয়ের মোগরাপাড়া চৌরাস্তা এলাকায় ফুট ওভার ব্রীজ হকার মুক্ত করলেন এম পি কাউসার হাসনাত Logo নাঃগঞ্জে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বইমেলায় কবিদের উত্তরীয় দিয়ে বরণ Logo সিদ্ধিরগঞ্জ পাওয়ার হাউজ স্কুলে ভর্তি বানিজ্য, ভর্তিতে অনিশ্চিত জমজ শিশু, প্রধান প্রকৌশলীর বদলির দাবি Logo উপজেলা নির্বাচনে সবার সহযোগিতা ও দোয়া চাইলেন মাকসুদ চেয়ারম্যান Logo বৃহত্তম মদনগঞ্জ পেশাজীবি শ্রমিক কল্যান সংগঠন’র ৫ ম বারের মতো বিনামূল্যে সুন্নতে খাৎনা অনুষ্ঠিত Logo বন্দরে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা ও স্বামী গুরুত্বর জখমের ঘটনায় মা ও ছেলে আটক

তিউনিশিয়া উপকূলের ফের নৌকাডুবি, প্রাণ গেল ৩১ অভিবাসীর

উন্নত জীবনের আশায় ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইতালি যাওয়ার চেষ্টার সময় তিউনিশিয়ার উপকূলের কাছে অন্তত ৩১ অভিবাসনপ্রত্যাশীর প্রাণহানি ঘটেছে। সোমবার তিউনিসিয়ার উপকূলরক্ষী বাহিনী ওই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে।
তিউনিশিয়ার উপকূলরক্ষী বাহিনী বলছে, দেশটির স্ফ্যাক্স, কেরকেন্নাহ এবং মাহদিয়া উপকূল থেকে ৩১ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুই নারী ও দুই শিশুও রয়েছে। মৃত এই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সবাই আফ্রিকান নাগরিক।
এই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের লাশ তিউনিশিয়ার ওই তিন উপকূলে ভেসে এসেছে বলে জানিয়েছেন দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা। তারা বলেছেন, ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইতালি যাওয়ার চেষ্টার সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়া একাধিক নৌকার আরোহী ছিলেন ওই অভিবাসনপ্রত্যাশীরা।
সম্প্রতি তিউনিসিয়া থেকে ইতালীয় উপকূল অভিমুখে অভিবাসীদের বহনকারী নৌকার সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টাকারী অভিবাসনপ্রত্যাশীদের জন্য এই রুট ২০১৭ সালের পর চলতি বছরে সবচেয়ে প্রাণঘাতী হয়ে উঠেছে।
চলতি বছরের এখন পর্যন্ত তিউনিশিয়া উপকূলে ৪৪০ জনের বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গত জানুয়ারি থেকে চলতি এপ্রিলের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত অন্তত ৩৫ হাজার অভিবাসনপ্রত্যাশী ইতালি উপকূলে পৌঁছেছে।
যা ২০২২ সালের একই সময়ের তুলনায় প্রায় চারগুণ বেশি। অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ক্রমবর্ধমান ঢল সামলাতে গত ১১ এপ্রিল ইতালির কট্টর ডানপন্থী জর্জিয়া মেলোনির সরকার জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে।
সোমবার জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর বলেছে, অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ইউরোপ অভিমুখী বিপজ্জনক সমুদ্রযাত্রা শুরুর প্রধান কেন্দ্র হয়ে উঠেছে তিউনিসিয়া।
চলতি বছরের এখন পর্যন্ত তিউনিশিয়ার উপকূলীয় এলাকা থেকে ১৯ হাজার ২৪৭ জন ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইতালিতে পৌঁছানোর চেষ্টা করেছে। এরপরই দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে আছে লিবিয়া (১৫ হাজার ৫০৯ জন) এবং তুরস্ক (১ হাজার ২৪৭ জন)।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

বেইলি রোডে অগ্নিকান্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬, দগ্ধরাও সংকটাপন্ন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

তিউনিশিয়া উপকূলের ফের নৌকাডুবি, প্রাণ গেল ৩১ অভিবাসীর

আপডেট সময় ০৩:২৫:২১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৩

উন্নত জীবনের আশায় ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইতালি যাওয়ার চেষ্টার সময় তিউনিশিয়ার উপকূলের কাছে অন্তত ৩১ অভিবাসনপ্রত্যাশীর প্রাণহানি ঘটেছে। সোমবার তিউনিসিয়ার উপকূলরক্ষী বাহিনী ওই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে।
তিউনিশিয়ার উপকূলরক্ষী বাহিনী বলছে, দেশটির স্ফ্যাক্স, কেরকেন্নাহ এবং মাহদিয়া উপকূল থেকে ৩১ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুই নারী ও দুই শিশুও রয়েছে। মৃত এই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সবাই আফ্রিকান নাগরিক।
এই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের লাশ তিউনিশিয়ার ওই তিন উপকূলে ভেসে এসেছে বলে জানিয়েছেন দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা। তারা বলেছেন, ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইতালি যাওয়ার চেষ্টার সময় দুর্ঘটনার কবলে পড়া একাধিক নৌকার আরোহী ছিলেন ওই অভিবাসনপ্রত্যাশীরা।
সম্প্রতি তিউনিসিয়া থেকে ইতালীয় উপকূল অভিমুখে অভিবাসীদের বহনকারী নৌকার সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টাকারী অভিবাসনপ্রত্যাশীদের জন্য এই রুট ২০১৭ সালের পর চলতি বছরে সবচেয়ে প্রাণঘাতী হয়ে উঠেছে।
চলতি বছরের এখন পর্যন্ত তিউনিশিয়া উপকূলে ৪৪০ জনের বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গত জানুয়ারি থেকে চলতি এপ্রিলের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত অন্তত ৩৫ হাজার অভিবাসনপ্রত্যাশী ইতালি উপকূলে পৌঁছেছে।
যা ২০২২ সালের একই সময়ের তুলনায় প্রায় চারগুণ বেশি। অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ক্রমবর্ধমান ঢল সামলাতে গত ১১ এপ্রিল ইতালির কট্টর ডানপন্থী জর্জিয়া মেলোনির সরকার জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে।
সোমবার জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর বলেছে, অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ইউরোপ অভিমুখী বিপজ্জনক সমুদ্রযাত্রা শুরুর প্রধান কেন্দ্র হয়ে উঠেছে তিউনিসিয়া।
চলতি বছরের এখন পর্যন্ত তিউনিশিয়ার উপকূলীয় এলাকা থেকে ১৯ হাজার ২৪৭ জন ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইতালিতে পৌঁছানোর চেষ্টা করেছে। এরপরই দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে আছে লিবিয়া (১৫ হাজার ৫০৯ জন) এবং তুরস্ক (১ হাজার ২৪৭ জন)।