ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টাকা পাচারে সরকার জড়িত, তাই খোঁজ নিচ্ছে না: নজরুল ইসলাম

গত ১৪ বছরে হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, এই টাকা কারা পাচার করলো? সে বিষয়ে তো সরকার কোনও খোঁজ নিচ্ছে না। কারণ, তারা এই পাচারের সঙ্গে জড়িত।

শনিবার (২১ জানুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর রুনি মিলনায়তনে জিয়া পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে ‘শহীদ জিয়ার কর্মময় জীবন’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে সুইস ব্যাংকে টাকা পাচার, বেগম পাড়া, সেকেন্ড হোমের কথা শুনছি। আগে কখনও এসবের কথা শুনিনি। কারা সেসব রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী তা জানার অধিকার বাংলাদেশের মানুষের রয়েছে। কিন্তু সরকার এসব তথ্য জানাবে না। কারণ, এসব লোক আওয়ামী লীগের। সরকার তাদের কাছ থেকে সুবিধা নেয় বলেই কিছু প্রকাশ করতে চায় না।’

তিনি বলেন, ‘কুইক রেন্টালের নামে প্রতি বছর হাজার হাজার কোটি টাকা জনগণের পকেট থেকে কিছু ব্যক্তিকে দেওয়া হচ্ছে। শুধু শুধুই কী দেওয়া হচ্ছে, নাকি সেই টাকার ভাগ বিভিন্ন জায়গায় যাচ্ছে? না গেলে অপ্রয়োজনীয় এই খাতে কেন টাকা ব্যয় করা হচ্ছে?’

দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতার প্রসঙ্গে নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে আন্দোলন বন্ধ করা যায় না, তা আপনারা ভালো করেই জানেন। আজ একটি নির্বাচন দিয়ে দেখুন না, কীভাবে আপনারা বিএনপির কাছে হেরে যান দেখবেন।’

আলোচনা সভায় জিয়া পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আবদুল কুদ্দুসের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, প্রফেসর ড. জিকে এম মোস্তাফিজুর রহমান, প্রফেসর ড. ওবায়দুল ইসলাম, প্রফেসর ড. আবু জাফর খান প্রমুখ।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

টাকা পাচারে সরকার জড়িত, তাই খোঁজ নিচ্ছে না: নজরুল ইসলাম

আপডেট সময় ০৪:১৯:২৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২৩

গত ১৪ বছরে হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, এই টাকা কারা পাচার করলো? সে বিষয়ে তো সরকার কোনও খোঁজ নিচ্ছে না। কারণ, তারা এই পাচারের সঙ্গে জড়িত।

শনিবার (২১ জানুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর রুনি মিলনায়তনে জিয়া পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে ‘শহীদ জিয়ার কর্মময় জীবন’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে সুইস ব্যাংকে টাকা পাচার, বেগম পাড়া, সেকেন্ড হোমের কথা শুনছি। আগে কখনও এসবের কথা শুনিনি। কারা সেসব রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী তা জানার অধিকার বাংলাদেশের মানুষের রয়েছে। কিন্তু সরকার এসব তথ্য জানাবে না। কারণ, এসব লোক আওয়ামী লীগের। সরকার তাদের কাছ থেকে সুবিধা নেয় বলেই কিছু প্রকাশ করতে চায় না।’

তিনি বলেন, ‘কুইক রেন্টালের নামে প্রতি বছর হাজার হাজার কোটি টাকা জনগণের পকেট থেকে কিছু ব্যক্তিকে দেওয়া হচ্ছে। শুধু শুধুই কী দেওয়া হচ্ছে, নাকি সেই টাকার ভাগ বিভিন্ন জায়গায় যাচ্ছে? না গেলে অপ্রয়োজনীয় এই খাতে কেন টাকা ব্যয় করা হচ্ছে?’

দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতার প্রসঙ্গে নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে আন্দোলন বন্ধ করা যায় না, তা আপনারা ভালো করেই জানেন। আজ একটি নির্বাচন দিয়ে দেখুন না, কীভাবে আপনারা বিএনপির কাছে হেরে যান দেখবেন।’

আলোচনা সভায় জিয়া পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আবদুল কুদ্দুসের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, প্রফেসর ড. জিকে এম মোস্তাফিজুর রহমান, প্রফেসর ড. ওবায়দুল ইসলাম, প্রফেসর ড. আবু জাফর খান প্রমুখ।