ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জুনে বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

চলতি বছরে ৩ বার বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছে সরকার। প্রতিবার ৫ শতাংশ করে মোট ১৫ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে বিদ্যুতের দাম। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল থেকে ঋণের শর্ত পুরণে বিদ্যুতে ভর্তুকি কমাতে ফের বিদ্যুতের দাম বাড়নোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে সরকার। আগামী জুনের মধ্যে বিদ্যুতের দাম আবারও বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে এমন ইংগিত দেয়া হয়েছে। ঢাকায় সফররত আইএমএফের প্রতিনিধি দলের ‘বিদ্যুতের ভর্তুকি কমাতে যথেষ্ট হয়নি’ মন্তবের পর জুনের মধ্যে আরো এক দফা বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে ঢাকায় সফররত আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কনসালটেশন মিশনকে জানিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। গত মঙ্গলবার সচিবালয়ে আইএমএফ স্টাফ কনসালটেশন মিশনের সঙ্গে এক বৈঠকে এসব কথা জানায় মন্ত্রণালয়।
আট সদস্যের মিশনটি অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব ফাতিমা ইয়াসমিনসহ অর্থ মন্ত্রণালয়ের সামষ্টিক অর্থনীতি বিভাগ এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভিন্ন বিভাগের সঙ্গে বৈঠক করে। এসব বৈঠকে তারা আইএমএফকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে এবং আগামী বাজেটে কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে তা জানতে চায়। একই সঙ্গে গত মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং আগামী জুন ও সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নযোগ্য বিভিন্ন পরিকল্পনার অগ্রগতিও জানতে চায়।
বৈঠকে অর্থ বিভাগের পক্ষ থেকে বলা হয়, সামগ্রিক ভর্তুকি আইএমএফ নির্ধারিত সীমায় আটকে রাখতে সরকার ইতোমধ্যে সারের দাম বাড়িয়েছে। পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে বিদ্যুতের দামও তিন দফা বাড়ানো হয়েছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে দুই দফা এবং মার্চে এক দফা ৫ শতাংশ করে গ্রাহক পর্যায়ে দাম বাড়ানো হয়েছে। এর আগে ২০২২ সালের নভেম্বরে পাইকারি পর্যায়ে ১৯ দশমিক ৯২ শতাংশ বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছে সরকার।
আইএমএফ গত ৩০ জানুয়ারি বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলার ঋণ প্রস্তাব অনুমোদন করে। এর তিন দিন পর প্রথম কিস্তিতে ছাড় করে ৪৭ কোটি ৬২ লাখ ৭০ হাজার ডলার। ২০২৬ সাল পর্যন্ত সাড়ে তিন বছরে মোট সাত কিস্তিতে দেবে ঋণের পুরো অর্থ। এ ঋণ নিতে ছোট-বড় ৩৮টি শর্ত পূরণ করতে হবে বাংলাদেশকে। শর্তের অন্যতম হচ্ছে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ভর্তুকির পরিমাণ কমিয়ে এনে সরকারের ব্যয় সক্ষমতা বাড়ানো।
ফলে গত আগস্টে পেট্রোল ও অকটেনে ৫০ শতাংশ এবং ডিজেল ও কেরোসিনে ৩৬ শতাংশ দাম বাড়ায় সরকার। শিল্প, বিদ্যুৎ উৎপাদন, হোটেল ও রেস্তোরাঁর গ্যাসের দামও গত ফেব্রুয়ারি থেকে বাড়ানো হয়েছে। প্রাকৃতিক গ্যাসের দামও গত বছরের জুনে গড়ে ২৩ শতাংশ বাড়ানো হয়।
অর্থ বিভাগের হিসাব অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে বিদ্যুৎ খাতে ভর্তুকি বাবদ ১৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। তবুও বিদ্যুৎ বিভাগ অতিরিক্ত ৩২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দাবি করে। পরে সংশোধিত বাজেটে এ খাতে অতিরিক্ত ৮ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়।
আইএমএফের দেয়া ঋণ কর্মসূচির অধীনে সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও নীতি বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনা করতে ৮ সদস্যের আইএমএফ স্টাফ মিশন ঢাকায় এসেছেন এবং তারা থাকবেন ২ মে পর্যন্ত। বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে এই মিশন পৃথক বৈঠক করেছে। এর আগে ফেব্রুয়ারিতে নয়াদিল্লিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক আলাপচারিতায় আইএমএফের এশিয়া-প্যাসিফিকের পরিচালক কৃষ্ণা শ্রীনিবাসন বলেছেন, সব ভর্তুকি ভালো নয়, সব ভর্তুকি দরিদ্র ও দুর্বলদের জন্য হয় না। আপনি যদি বাংলাদেশের দিকে তাকান, গ্যাস ও বিদ্যুতের জন্য প্রচুর ভর্তুকি দেওয়া হয়। কারা গাড়ি চালায়? কারা শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ করে? দরিদ্ররা এগুলোর ব্যবহার করে না, করে ধনীরা। একটি আর্থিক সমস্যার মধ্য দিয়ে যাওয়া দেশে তারা যে ভর্তুকি পাচ্ছেন, তা প্রাপ্য নয়। সরকার সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি এবং অবকাঠামো ব্যয়ে কতটা খরচ করতে সক্ষম তার ওপর সামগ্রিক ভর্তুকির বিষয়টি নির্ভর করে। পরবর্তীকালে আইএমএফ সামগ্রিক ভর্তুকি বা সামগ্রিক কর ছাড় থেকে বের হয়ে আসতে এবং সুনির্দিষ্ট গোষ্ঠীর জন্য ভর্তুকি প্রদানের ওপর জোর দেয়। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে ভর্তুকি ব্যয়ের জন্য রেকর্ড ৮১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। সংশোধিত বাজেটে আরও ২১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করার কথা ছিল। কিন্তু জীবনযাত্রার সংকটে জর্জরিত সাধারণ মানুষের জন্য ৬ মাসের মধ্যে চতুর্থবারের মতো বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি বোঝা হয়ে দাঁড়াতে পারে।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে মূল্যস্ফীতির পরিমাণ গড়ে ৮ দশমিক ৮১ শতাংশ, যা বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ৫ দশমিক ৬ শতাংশের চেয়ে বেশি। মার্চে মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৯ দশমিক ৩৩ শতাংশে, যা গত ৭ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।
অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আইএমএফের জানিয়েছে, নেট ইন্টারন্যাশনাল রিজার্ভের (এনআইআর) জন্য জুনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা কঠিন, যা ঋণের পরবর্তী ধাপের অর্থ পাওয়ার জন্য ৩টি বাধ্যতামূলক শর্তের একটি। আইএমএফের শর্ত অনুযায়ী, ৩০ জুন সর্বনি¤œ এনআইআর হতে হবে সর্বনি¤œ ২৪ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন ডলার।
অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, গত ৩০ মার্চ এনআইআর ছিল ২২ বিলিয়ন ডলারেরও কম। যেখানে মার্চের জন্য আইএমএফের শর্ত ছিল এনআইআর সর্বনি¤œ ২২ দশমিক ৯৫ বিলিয়ন ডলার হতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা আইএমএফকে জানিয়েছেন, শর্ত অনুযায়ী জুনের মধ্যে সব অফিসিয়াল বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেন এবং সুদের হার করিডোরের জন্য একটি বাজার নির্ধারিত বিনিময় হার চালু করতে যাচ্ছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মো. মেজবাউল হক গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, আমরা একটি একক বিনিময় হার চালু করার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছি। জুলাইয়ে যে মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে, সেখানে আইএমএফের বিপিএম ৬ ম্যানুয়াল অনুসারে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের প্রতিবেদনের মতো অনেক সুপারিশ প্রতিফলিত হবে। এখনো ৩ মাস বাকি। কাজেই এখনই এটা বলা সম্ভব নয়। তবে লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি থাকবে বলে আশা করছি।
নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি, মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির কারণে সাধারণ নিন্মবিত্ত-মধ্যবিত্ত মানুষের জীবন ওষ্ঠাগত। তারওপর বিদ্যুৎ গ্যাসের উপুর্যপুরি দামবৃদ্ধি সাধারণ মানুষের জীবন আরো দুর্বিসহ করে তুলছে। এর মধ্যে আইএমএফের ঋণের কিস্তি ছাড়া করতে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

জুনে বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

আপডেট সময় ০৩:৫৬:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ এপ্রিল ২০২৩

চলতি বছরে ৩ বার বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছে সরকার। প্রতিবার ৫ শতাংশ করে মোট ১৫ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে বিদ্যুতের দাম। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল থেকে ঋণের শর্ত পুরণে বিদ্যুতে ভর্তুকি কমাতে ফের বিদ্যুতের দাম বাড়নোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে সরকার। আগামী জুনের মধ্যে বিদ্যুতের দাম আবারও বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে এমন ইংগিত দেয়া হয়েছে। ঢাকায় সফররত আইএমএফের প্রতিনিধি দলের ‘বিদ্যুতের ভর্তুকি কমাতে যথেষ্ট হয়নি’ মন্তবের পর জুনের মধ্যে আরো এক দফা বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে ঢাকায় সফররত আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কনসালটেশন মিশনকে জানিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। গত মঙ্গলবার সচিবালয়ে আইএমএফ স্টাফ কনসালটেশন মিশনের সঙ্গে এক বৈঠকে এসব কথা জানায় মন্ত্রণালয়।
আট সদস্যের মিশনটি অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব ফাতিমা ইয়াসমিনসহ অর্থ মন্ত্রণালয়ের সামষ্টিক অর্থনীতি বিভাগ এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভিন্ন বিভাগের সঙ্গে বৈঠক করে। এসব বৈঠকে তারা আইএমএফকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে এবং আগামী বাজেটে কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে তা জানতে চায়। একই সঙ্গে গত মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং আগামী জুন ও সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নযোগ্য বিভিন্ন পরিকল্পনার অগ্রগতিও জানতে চায়।
বৈঠকে অর্থ বিভাগের পক্ষ থেকে বলা হয়, সামগ্রিক ভর্তুকি আইএমএফ নির্ধারিত সীমায় আটকে রাখতে সরকার ইতোমধ্যে সারের দাম বাড়িয়েছে। পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে বিদ্যুতের দামও তিন দফা বাড়ানো হয়েছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে দুই দফা এবং মার্চে এক দফা ৫ শতাংশ করে গ্রাহক পর্যায়ে দাম বাড়ানো হয়েছে। এর আগে ২০২২ সালের নভেম্বরে পাইকারি পর্যায়ে ১৯ দশমিক ৯২ শতাংশ বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছে সরকার।
আইএমএফ গত ৩০ জানুয়ারি বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলার ঋণ প্রস্তাব অনুমোদন করে। এর তিন দিন পর প্রথম কিস্তিতে ছাড় করে ৪৭ কোটি ৬২ লাখ ৭০ হাজার ডলার। ২০২৬ সাল পর্যন্ত সাড়ে তিন বছরে মোট সাত কিস্তিতে দেবে ঋণের পুরো অর্থ। এ ঋণ নিতে ছোট-বড় ৩৮টি শর্ত পূরণ করতে হবে বাংলাদেশকে। শর্তের অন্যতম হচ্ছে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ভর্তুকির পরিমাণ কমিয়ে এনে সরকারের ব্যয় সক্ষমতা বাড়ানো।
ফলে গত আগস্টে পেট্রোল ও অকটেনে ৫০ শতাংশ এবং ডিজেল ও কেরোসিনে ৩৬ শতাংশ দাম বাড়ায় সরকার। শিল্প, বিদ্যুৎ উৎপাদন, হোটেল ও রেস্তোরাঁর গ্যাসের দামও গত ফেব্রুয়ারি থেকে বাড়ানো হয়েছে। প্রাকৃতিক গ্যাসের দামও গত বছরের জুনে গড়ে ২৩ শতাংশ বাড়ানো হয়।
অর্থ বিভাগের হিসাব অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে বিদ্যুৎ খাতে ভর্তুকি বাবদ ১৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। তবুও বিদ্যুৎ বিভাগ অতিরিক্ত ৩২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দাবি করে। পরে সংশোধিত বাজেটে এ খাতে অতিরিক্ত ৮ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়।
আইএমএফের দেয়া ঋণ কর্মসূচির অধীনে সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও নীতি বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনা করতে ৮ সদস্যের আইএমএফ স্টাফ মিশন ঢাকায় এসেছেন এবং তারা থাকবেন ২ মে পর্যন্ত। বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে এই মিশন পৃথক বৈঠক করেছে। এর আগে ফেব্রুয়ারিতে নয়াদিল্লিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক আলাপচারিতায় আইএমএফের এশিয়া-প্যাসিফিকের পরিচালক কৃষ্ণা শ্রীনিবাসন বলেছেন, সব ভর্তুকি ভালো নয়, সব ভর্তুকি দরিদ্র ও দুর্বলদের জন্য হয় না। আপনি যদি বাংলাদেশের দিকে তাকান, গ্যাস ও বিদ্যুতের জন্য প্রচুর ভর্তুকি দেওয়া হয়। কারা গাড়ি চালায়? কারা শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ করে? দরিদ্ররা এগুলোর ব্যবহার করে না, করে ধনীরা। একটি আর্থিক সমস্যার মধ্য দিয়ে যাওয়া দেশে তারা যে ভর্তুকি পাচ্ছেন, তা প্রাপ্য নয়। সরকার সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি এবং অবকাঠামো ব্যয়ে কতটা খরচ করতে সক্ষম তার ওপর সামগ্রিক ভর্তুকির বিষয়টি নির্ভর করে। পরবর্তীকালে আইএমএফ সামগ্রিক ভর্তুকি বা সামগ্রিক কর ছাড় থেকে বের হয়ে আসতে এবং সুনির্দিষ্ট গোষ্ঠীর জন্য ভর্তুকি প্রদানের ওপর জোর দেয়। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে ভর্তুকি ব্যয়ের জন্য রেকর্ড ৮১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। সংশোধিত বাজেটে আরও ২১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করার কথা ছিল। কিন্তু জীবনযাত্রার সংকটে জর্জরিত সাধারণ মানুষের জন্য ৬ মাসের মধ্যে চতুর্থবারের মতো বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি বোঝা হয়ে দাঁড়াতে পারে।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে মূল্যস্ফীতির পরিমাণ গড়ে ৮ দশমিক ৮১ শতাংশ, যা বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ৫ দশমিক ৬ শতাংশের চেয়ে বেশি। মার্চে মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৯ দশমিক ৩৩ শতাংশে, যা গত ৭ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।
অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আইএমএফের জানিয়েছে, নেট ইন্টারন্যাশনাল রিজার্ভের (এনআইআর) জন্য জুনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা কঠিন, যা ঋণের পরবর্তী ধাপের অর্থ পাওয়ার জন্য ৩টি বাধ্যতামূলক শর্তের একটি। আইএমএফের শর্ত অনুযায়ী, ৩০ জুন সর্বনি¤œ এনআইআর হতে হবে সর্বনি¤œ ২৪ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন ডলার।
অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, গত ৩০ মার্চ এনআইআর ছিল ২২ বিলিয়ন ডলারেরও কম। যেখানে মার্চের জন্য আইএমএফের শর্ত ছিল এনআইআর সর্বনি¤œ ২২ দশমিক ৯৫ বিলিয়ন ডলার হতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা আইএমএফকে জানিয়েছেন, শর্ত অনুযায়ী জুনের মধ্যে সব অফিসিয়াল বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেন এবং সুদের হার করিডোরের জন্য একটি বাজার নির্ধারিত বিনিময় হার চালু করতে যাচ্ছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মো. মেজবাউল হক গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, আমরা একটি একক বিনিময় হার চালু করার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছি। জুলাইয়ে যে মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে, সেখানে আইএমএফের বিপিএম ৬ ম্যানুয়াল অনুসারে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের প্রতিবেদনের মতো অনেক সুপারিশ প্রতিফলিত হবে। এখনো ৩ মাস বাকি। কাজেই এখনই এটা বলা সম্ভব নয়। তবে লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি থাকবে বলে আশা করছি।
নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি, মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির কারণে সাধারণ নিন্মবিত্ত-মধ্যবিত্ত মানুষের জীবন ওষ্ঠাগত। তারওপর বিদ্যুৎ গ্যাসের উপুর্যপুরি দামবৃদ্ধি সাধারণ মানুষের জীবন আরো দুর্বিসহ করে তুলছে। এর মধ্যে আইএমএফের ঋণের কিস্তি ছাড়া করতে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।