ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০২৪, ২৮ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গুগল নিয়ে এলো চ্যাটজিপিটি’র প্রতিদ্বন্দ্বী বার্ড

গুগল উন্মোচন করেছে চ্যাটজিপিটি’র প্রতিদ্বন্দ্বী বার্ড। তবে গুগলের এই এআই চ্যাটবট শুধু ১৮ বছরের ওপরের ব্যক্তিরা ব্যবহার করতে পারবেন।

বিবিসি জানায়, গুগল বার্ড চ্যাটজিপিটি’র মতো পুরোনো তথ্য নয় বরং সম্পূর্ণ নতুন তথ্য দিয়ে সাজানো। তারপরও এর অনেক সীমাবদ্ধতা আছে বলে সতর্ক করেছে গুগল। কেননা এটি বাস্তব জগতের বিভিন্ন তথ্য থেকে শেখে। ভুল তথ্য শিখে সেখান থেকেই সিদ্ধান্ত দেওয়ার শঙ্কা আছে বলে জানানো হয়েছে গুগলের পক্ষ থেকে।

বিবিসি জানায়, গুগল অনেক ধীর গতিতে এবং বেশ সতর্কতার সঙ্গে তাদের চ্যাটবটের এই সংস্করণটি উন্মোচিত করেছে। এটি আপাতত আমেরিকা এবং যুক্তরাজ্যে চালু হয়েছে। গুগলের আগের ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল ল্যামডার বংশধর বলা যেতে পারে এটিকে। তবে ল্যামডা কখনই সবার জন্য সম্পূর্ণভাবে উন্মোচিত হয়নি।

গুগলের সিনিয়র প্রোডাক্ট ডিরেক্টর জ্যাক ক্রজাইক বিবিসিকে বলেন, ‘বার্ড মূলত পরীক্ষামূলক পর্যায়ে আছে। সবাই এটাকে সৃজনশীলতার একটি লঞ্চপ্যাড হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। বার্ড যেনো কোনও প্রকার আক্রমণাত্মক কিছু প্রকাশ না করে সেভাবে এটাকে প্রোগ্রাম করা হয়েছে। যে কোনও ক্ষতিকারক, অবৈধ এবং যৌনতা প্রকাশ করে এমন কিছু এতে ফিল্টার করা হয়েছে।’

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

গুগল নিয়ে এলো চ্যাটজিপিটি’র প্রতিদ্বন্দ্বী বার্ড

আপডেট সময় ০৩:৪৬:৫৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩

গুগল উন্মোচন করেছে চ্যাটজিপিটি’র প্রতিদ্বন্দ্বী বার্ড। তবে গুগলের এই এআই চ্যাটবট শুধু ১৮ বছরের ওপরের ব্যক্তিরা ব্যবহার করতে পারবেন।

বিবিসি জানায়, গুগল বার্ড চ্যাটজিপিটি’র মতো পুরোনো তথ্য নয় বরং সম্পূর্ণ নতুন তথ্য দিয়ে সাজানো। তারপরও এর অনেক সীমাবদ্ধতা আছে বলে সতর্ক করেছে গুগল। কেননা এটি বাস্তব জগতের বিভিন্ন তথ্য থেকে শেখে। ভুল তথ্য শিখে সেখান থেকেই সিদ্ধান্ত দেওয়ার শঙ্কা আছে বলে জানানো হয়েছে গুগলের পক্ষ থেকে।

বিবিসি জানায়, গুগল অনেক ধীর গতিতে এবং বেশ সতর্কতার সঙ্গে তাদের চ্যাটবটের এই সংস্করণটি উন্মোচিত করেছে। এটি আপাতত আমেরিকা এবং যুক্তরাজ্যে চালু হয়েছে। গুগলের আগের ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল ল্যামডার বংশধর বলা যেতে পারে এটিকে। তবে ল্যামডা কখনই সবার জন্য সম্পূর্ণভাবে উন্মোচিত হয়নি।

গুগলের সিনিয়র প্রোডাক্ট ডিরেক্টর জ্যাক ক্রজাইক বিবিসিকে বলেন, ‘বার্ড মূলত পরীক্ষামূলক পর্যায়ে আছে। সবাই এটাকে সৃজনশীলতার একটি লঞ্চপ্যাড হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। বার্ড যেনো কোনও প্রকার আক্রমণাত্মক কিছু প্রকাশ না করে সেভাবে এটাকে প্রোগ্রাম করা হয়েছে। যে কোনও ক্ষতিকারক, অবৈধ এবং যৌনতা প্রকাশ করে এমন কিছু এতে ফিল্টার করা হয়েছে।’