ঢাকা , শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘গাজীপুর সিটি নির্বাচনে চ্যালেঞ্জ ও চাপ নেই’

নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা বলেছেন, ‘আমাদের কাছে সব নির্বাচনই সমান গুরুত্বপূর্ণ। গাজীপুর সিটি নির্বাচনের ক্ষেত্রে আলাদা কোনও চ্যালেঞ্জ ও চাপ নেই। যেখানেই নির্বাচন হচ্ছে আমরা তা মনিটরিং করছি। আমাদের পক্ষ থেকেও কারও ওপর চাপ নেই। যে যার মতো নির্বাচনের কাজ করছে। তাতে কোনও অসুবিধা নেই।’

 

বুধবার (২৪ মে) বিকাল ৪টায় গাজীপুর সার্কিট হাউসে নির্বাচন নিয়ে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় যোগ দিতে এসে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। এ সময় গাজীপুর সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম, সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা এ এইচ এম কামরুল ইসলাম, জাকির হোসেনসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচনের আগের দিন কেন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন- এমন প্রশ্নে রাশেদা সুলতানা বলেন, ‘কারণ একটাই, সেটা হলো নির্বাচনের দিন আচরণবিধি ভঙ্গ হয় কি না। কী অনিয়ম হয় এ বিষয়গুলো জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটরা সামারি ট্রায়াল করবেন। তাদের সঙ্গে যদি ব্রিফিং করি তাহলে সবকিছুতেই সুন্দর একটা সমন্বয় হয়।’

ভোটারদের নির্ভয়ে কেন্দ্রে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা চাই ভোটারদের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু, সুন্দর ও নিরপেক্ষ একটা ভোট হোক। এটা নিয়ে কমিশনের ম্যাসেজ হলো- সুষ্ঠু নির্বাচন। এতে কোনও ব্যত্যয়ের সুযোগ নেই। আমরা এটাই করবো, এটা করার জন্যই সচেষ্ট। অবশ্যই আপনারা (ভোটার) কেন্দ্রে নির্ভয়ে আসবেন।’

এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। ওনাকে বলেছি, নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ যাতে কোনোভাবেই বিঘ্নিত না হয়। উনি আমাকে নিশ্চিত করে বলেছেন, ভোটারদের জন্য সুষ্ঠু পরিবেশে নিশ্চিত করবো। ভোটাররা যেন বলতে পারেন, আমরা আমাদের ভোটটা দিয়েছি। আর এর ব্যত্যয় ঘটলে অবশ্যই জড়িতদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে তা আপনারা দেখতে পাবেন।’

আগামীকাল বৃহস্পতিবার গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভোটগ্রহণ হবে। ভোটগ্রহণে কেন্দ্রে কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়ে গেছে। পৌঁছে গেছে নির্বাচনি সরঞ্জাম। এই বিষয়ে রাশেদা সুলতানা বলেন, ‘মনিটরিংয়ে যদি কোনও অনিয়ম পাই, তাহলে সেটা অবশ্যই আমলে নেবো।’

জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে বৈঠক শেষে কেন্দ্র পরিদর্শনে যাবেন তিনি। কেন্দ্রে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, পুলিশসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত হয়েছেন কি-না, মালামালগুলো ঠিকমতো কেন্দ্রে গেছে কি-না, সিসি ক্যামেরা ঠিকমতো সেট করা হয়েছে কি-না, কীভাবে ওই ক্যামেরা কাজ করবে, আবার ক্যামেরায় বুথ দেখা যাবে কি-না এসব দেখতে কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করবেন বলে জানান।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

‘গাজীপুর সিটি নির্বাচনে চ্যালেঞ্জ ও চাপ নেই’

আপডেট সময় ০৩:৫৭:৩৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০২৩

নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা বলেছেন, ‘আমাদের কাছে সব নির্বাচনই সমান গুরুত্বপূর্ণ। গাজীপুর সিটি নির্বাচনের ক্ষেত্রে আলাদা কোনও চ্যালেঞ্জ ও চাপ নেই। যেখানেই নির্বাচন হচ্ছে আমরা তা মনিটরিং করছি। আমাদের পক্ষ থেকেও কারও ওপর চাপ নেই। যে যার মতো নির্বাচনের কাজ করছে। তাতে কোনও অসুবিধা নেই।’

 

বুধবার (২৪ মে) বিকাল ৪টায় গাজীপুর সার্কিট হাউসে নির্বাচন নিয়ে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় যোগ দিতে এসে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। এ সময় গাজীপুর সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম, সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা এ এইচ এম কামরুল ইসলাম, জাকির হোসেনসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচনের আগের দিন কেন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন- এমন প্রশ্নে রাশেদা সুলতানা বলেন, ‘কারণ একটাই, সেটা হলো নির্বাচনের দিন আচরণবিধি ভঙ্গ হয় কি না। কী অনিয়ম হয় এ বিষয়গুলো জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটরা সামারি ট্রায়াল করবেন। তাদের সঙ্গে যদি ব্রিফিং করি তাহলে সবকিছুতেই সুন্দর একটা সমন্বয় হয়।’

ভোটারদের নির্ভয়ে কেন্দ্রে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা চাই ভোটারদের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু, সুন্দর ও নিরপেক্ষ একটা ভোট হোক। এটা নিয়ে কমিশনের ম্যাসেজ হলো- সুষ্ঠু নির্বাচন। এতে কোনও ব্যত্যয়ের সুযোগ নেই। আমরা এটাই করবো, এটা করার জন্যই সচেষ্ট। অবশ্যই আপনারা (ভোটার) কেন্দ্রে নির্ভয়ে আসবেন।’

এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। ওনাকে বলেছি, নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ যাতে কোনোভাবেই বিঘ্নিত না হয়। উনি আমাকে নিশ্চিত করে বলেছেন, ভোটারদের জন্য সুষ্ঠু পরিবেশে নিশ্চিত করবো। ভোটাররা যেন বলতে পারেন, আমরা আমাদের ভোটটা দিয়েছি। আর এর ব্যত্যয় ঘটলে অবশ্যই জড়িতদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে তা আপনারা দেখতে পাবেন।’

আগামীকাল বৃহস্পতিবার গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভোটগ্রহণ হবে। ভোটগ্রহণে কেন্দ্রে কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়ে গেছে। পৌঁছে গেছে নির্বাচনি সরঞ্জাম। এই বিষয়ে রাশেদা সুলতানা বলেন, ‘মনিটরিংয়ে যদি কোনও অনিয়ম পাই, তাহলে সেটা অবশ্যই আমলে নেবো।’

জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটদের সঙ্গে বৈঠক শেষে কেন্দ্র পরিদর্শনে যাবেন তিনি। কেন্দ্রে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা, পুলিশসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত হয়েছেন কি-না, মালামালগুলো ঠিকমতো কেন্দ্রে গেছে কি-না, সিসি ক্যামেরা ঠিকমতো সেট করা হয়েছে কি-না, কীভাবে ওই ক্যামেরা কাজ করবে, আবার ক্যামেরায় বুথ দেখা যাবে কি-না এসব দেখতে কেন্দ্রগুলো পরিদর্শন করবেন বলে জানান।