ঢাকা , শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo বেইলি রোডে অগ্নিকান্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬, দগ্ধরাও সংকটাপন্ন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী Logo সাত প্রতিমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ Logo আলো ঝলমলে রাতে বিপিএলের চ্যাম্পিয়ন বরিশাল Logo ফতুল্লায় নাসিম ওসমান স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণ Logo সোনারগাঁয়ের মোগরাপাড়া চৌরাস্তা এলাকায় ফুট ওভার ব্রীজ হকার মুক্ত করলেন এম পি কাউসার হাসনাত Logo নাঃগঞ্জে মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বইমেলায় কবিদের উত্তরীয় দিয়ে বরণ Logo সিদ্ধিরগঞ্জ পাওয়ার হাউজ স্কুলে ভর্তি বানিজ্য, ভর্তিতে অনিশ্চিত জমজ শিশু, প্রধান প্রকৌশলীর বদলির দাবি Logo উপজেলা নির্বাচনে সবার সহযোগিতা ও দোয়া চাইলেন মাকসুদ চেয়ারম্যান Logo বৃহত্তম মদনগঞ্জ পেশাজীবি শ্রমিক কল্যান সংগঠন’র ৫ ম বারের মতো বিনামূল্যে সুন্নতে খাৎনা অনুষ্ঠিত Logo বন্দরে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা ও স্বামী গুরুত্বর জখমের ঘটনায় মা ও ছেলে আটক

কুলদীপের ঘূর্ণি আর রাহুলের দৃঢ়তায় সিরিজ ভারতের

ইডেন গার্ডেনসে দাপট দেখালো দুই দলের বোলাররাই। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ভারতীয় বোলিং তোপে ২১৫ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর লঙ্কানরাও বল হাতে ভারতকে বিপদে ফেলে দিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত সফল হয়নি মিডল অর্ডারে লোকেশ রাহুল ও হার্দিক পান্ডিয়ার জুটির কারণে। তাতে ৪ উইকেটের জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ ২-০ তে নিশ্চিত করেছে ভারতীয় দল।

প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিলে শুরুটা খারাপ ছিল না শ্রীলঙ্কার। ২৯ রানে প্রথম উইকেট পড়লেও অভিষিক্ত নুয়ানিদু ফার্নান্ডো ও ৩ নম্বরে নামা কুশল মেন্ডিসের দ্বিতীয় উইকেট জুটি এক সময় ৩০০ রানের স্বপ্ন দেখাচ্ছিল। ১৭ ওভার পর্যন্ত স্কোর ছিল ১ উইকেটে ১০২। তার পর কুলদীপ যাদবের ঘূর্ণিতে মুহূর্তেই প্রেক্ষাপট পাল্টে যায় শ্রীলঙ্কার। এলবিডাব্লিউতে মেন্ডিসকে বিদায় দিয়ে ৭৩ রানের জুটি ভেঙে লঙ্কানদের ব্যাটিংয়ে ধস নামাতে অবদান রাখেন তিনি। তার পর ৫০ রানের ব্যবধানে পড়েছে ৬ উইকেট! সর্বোচ্চ ৫০ রান আসে নুয়ানিদুর ব্যাট থেকে। কুশল মেন্ডিস ৩৪ রান করেছেন। শেষ দিকে দুনিথ ওয়াল্লালাগে ৩২ রানে লড়াই করায় স্কোরটা ৩৯.৪ ওভারে ২১৫ রান পর্যন্ত গেছে।

৫১ রানে ৩ উইকেট নেন রিস্ট স্পিনার কুলদীপ। ম্যাচসেরাও তিনি। ৩০ রানে ৩টি নেন মোহাম্মদ সিরাজও। উমরান মালিক ৪৮ রানে দুটি উইকেট নিয়েছেন। ১৬ রানে একটি নিয়েছেন অক্ষর প্যাটেল।

মামুলি স্কোর দেখে ভারতের সহজেই সেটি তাড়া করার কথা। কিন্তু লঙ্কান বোলিং সেই সহজ পথটাই তাদের জন্য কঠিন করে তোলে। পুরোপুরি ব্যর্থ ছিল টপ অর্ডার। ৬২ রানের মধ্যে সাজঘরে ফেরেন রোহিত শর্মা (১৭), শুবমান গিল (২১) ও বিরাট কোহলি (৪)। তার পর লোকেশ রাহুলকে সঙ্গে নিয়ে ধাক্কা সামলানোর চেষ্টায় ছিলেন শ্রেয়াস আইয়ার। ২৪ রান যোগ করতে পারে এই জুটি। ২৮ রান করা আইয়ারকে বিদায় দেন রাজিথা। ৪ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ভারতকে টেনে তুলেছে মূলত রাহুল-পান্ডিয়ার জুটিই। একটা পর্যায়ে জয়ের পথটাকে সহজ করার চেষ্টায় ছিলেন তারা। ৭৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ জুটিটি ভাঙে হার্দিক পান্ডিয়া ৩৬ রানে বিদায় নিলে। ভারত পুনরায় চাপে পড়লে বাকি কাজ একাই সেরেছেন রাহুল। অক্ষর প্যাটেল ও কুলদীপকে সঙ্গে নিয়ে ছোট ছোট জুটি গড়ে ৪০ বল আগেই দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়েছেন। ১০৩ বলে তার ৬৪ রানের অপরাজিত ইনিংসের কল্যাণে ভারত ৬ উইকেট হারিয়ে ৪৩.২ ওভারে জয় নিশ্চিত করেছে। রাহুলের ইনিংসে ছিল ৬টি চার।

লঙ্কানদের হয়ে ৫১ রানে দুটি উইকেট নেন চামিকা করুনারত্নে। ৬৪ রানে দুটি নেন লাহিরু কুমারাও। ৯ ও ৪৬ রানে যথাক্রমে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও কাসুন রাজিথা একটি করে উইকেট নিয়েছেন।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

বেইলি রোডে অগ্নিকান্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬, দগ্ধরাও সংকটাপন্ন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

কুলদীপের ঘূর্ণি আর রাহুলের দৃঢ়তায় সিরিজ ভারতের

আপডেট সময় ০৪:৫০:৪২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২৩

ইডেন গার্ডেনসে দাপট দেখালো দুই দলের বোলাররাই। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ভারতীয় বোলিং তোপে ২১৫ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর লঙ্কানরাও বল হাতে ভারতকে বিপদে ফেলে দিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত সফল হয়নি মিডল অর্ডারে লোকেশ রাহুল ও হার্দিক পান্ডিয়ার জুটির কারণে। তাতে ৪ উইকেটের জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ ২-০ তে নিশ্চিত করেছে ভারতীয় দল।

প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিলে শুরুটা খারাপ ছিল না শ্রীলঙ্কার। ২৯ রানে প্রথম উইকেট পড়লেও অভিষিক্ত নুয়ানিদু ফার্নান্ডো ও ৩ নম্বরে নামা কুশল মেন্ডিসের দ্বিতীয় উইকেট জুটি এক সময় ৩০০ রানের স্বপ্ন দেখাচ্ছিল। ১৭ ওভার পর্যন্ত স্কোর ছিল ১ উইকেটে ১০২। তার পর কুলদীপ যাদবের ঘূর্ণিতে মুহূর্তেই প্রেক্ষাপট পাল্টে যায় শ্রীলঙ্কার। এলবিডাব্লিউতে মেন্ডিসকে বিদায় দিয়ে ৭৩ রানের জুটি ভেঙে লঙ্কানদের ব্যাটিংয়ে ধস নামাতে অবদান রাখেন তিনি। তার পর ৫০ রানের ব্যবধানে পড়েছে ৬ উইকেট! সর্বোচ্চ ৫০ রান আসে নুয়ানিদুর ব্যাট থেকে। কুশল মেন্ডিস ৩৪ রান করেছেন। শেষ দিকে দুনিথ ওয়াল্লালাগে ৩২ রানে লড়াই করায় স্কোরটা ৩৯.৪ ওভারে ২১৫ রান পর্যন্ত গেছে।

৫১ রানে ৩ উইকেট নেন রিস্ট স্পিনার কুলদীপ। ম্যাচসেরাও তিনি। ৩০ রানে ৩টি নেন মোহাম্মদ সিরাজও। উমরান মালিক ৪৮ রানে দুটি উইকেট নিয়েছেন। ১৬ রানে একটি নিয়েছেন অক্ষর প্যাটেল।

মামুলি স্কোর দেখে ভারতের সহজেই সেটি তাড়া করার কথা। কিন্তু লঙ্কান বোলিং সেই সহজ পথটাই তাদের জন্য কঠিন করে তোলে। পুরোপুরি ব্যর্থ ছিল টপ অর্ডার। ৬২ রানের মধ্যে সাজঘরে ফেরেন রোহিত শর্মা (১৭), শুবমান গিল (২১) ও বিরাট কোহলি (৪)। তার পর লোকেশ রাহুলকে সঙ্গে নিয়ে ধাক্কা সামলানোর চেষ্টায় ছিলেন শ্রেয়াস আইয়ার। ২৪ রান যোগ করতে পারে এই জুটি। ২৮ রান করা আইয়ারকে বিদায় দেন রাজিথা। ৪ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ভারতকে টেনে তুলেছে মূলত রাহুল-পান্ডিয়ার জুটিই। একটা পর্যায়ে জয়ের পথটাকে সহজ করার চেষ্টায় ছিলেন তারা। ৭৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ জুটিটি ভাঙে হার্দিক পান্ডিয়া ৩৬ রানে বিদায় নিলে। ভারত পুনরায় চাপে পড়লে বাকি কাজ একাই সেরেছেন রাহুল। অক্ষর প্যাটেল ও কুলদীপকে সঙ্গে নিয়ে ছোট ছোট জুটি গড়ে ৪০ বল আগেই দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়েছেন। ১০৩ বলে তার ৬৪ রানের অপরাজিত ইনিংসের কল্যাণে ভারত ৬ উইকেট হারিয়ে ৪৩.২ ওভারে জয় নিশ্চিত করেছে। রাহুলের ইনিংসে ছিল ৬টি চার।

লঙ্কানদের হয়ে ৫১ রানে দুটি উইকেট নেন চামিকা করুনারত্নে। ৬৪ রানে দুটি নেন লাহিরু কুমারাও। ৯ ও ৪৬ রানে যথাক্রমে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও কাসুন রাজিথা একটি করে উইকেট নিয়েছেন।