ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় আ.লীগ-বিএনপির কর্মসূচি পালন

রাজবাড়ীতে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার মধ্য দিয়ে বিএনপি’র জনসমাবেশ ও আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ ঘটনায় ১১ জনকে আটক করা হয়েছে বলে দাবি বিএনপির। আহত হয়েছে এখন টেলিভিশনের রাজবাড়ী প্রতিনিধি কাজী তানভীর মাহমুদ ও গ্লোবাল টেলিভিশনের রাজবাড়ী প্রতিনিধি খোন্দকার রবিউল ইসলাম

গতকাল শনিবার সকাল ১১টায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পূর্ব ঘোষিত জনসমাবেশের আয়োজন করে বিএনপি। অপরদিকে সকাল ১০টা থেকে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে শান্তি সমাবেশের আয়োজন করে আওয়ামী লীগ। দুই গ্রুপের কর্মসুচীকে কেন্দ্র করে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
রাজবাড়ী জেলা বিএনপি কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বিএনপি’র জনসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বেগম খালেদা উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নুল আবেদিন ফারুক দাবি করেন, বিএনপি কার্যালয়ে প্রবেশ পথে তার গাড়িতে চারটি লাঠির আঘাত করা হয়েছে। এ সময় আগামী নির্বাচনে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে আসবে না বলে ঘোষণা দেন তিনি। এ সময় কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, রাজবাড়ী জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ বক্তৃতা করেন।

ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ম বলেন, জনসমাবেশে যাওয়ার আগেই নেতাকর্মীদের মারপিট করা হয়েছে। বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। অবিলম্বে তাদের মুক্তি দিতে হবে। এই হামলা ও মারপিটের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন তিনি।

অপরদিকে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ সোহেল রানা টিপু দাবি করেছেন, ছাত্রলীগ ও যুব লীগের নেতাকর্মীরা শান্তি সমাবেশে যোগ দিতে আসার সময় সাবেক বিএনপির সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়মের বাড়ির সামনে আসলে তারা হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে ও নেতাকর্মীদের পিটিয়ে আহত করে। পরে শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে আওয়ামী লীগ। যার নেতৃত্ব দেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী।
পরে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় শান্তি সমাবেশ। এসময় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, বিএনপি আবার দেশটা অস্থিতিশীল করতে পায়তারা করছে। তারা ধ্বংসের আন্দোলন শুরু করেছে। আমাদের নেতাকর্মীদের কর্মসুচীতে আসতে বাধা প্রদান করেছে। মারপিট করেছে, মোটর সাইকেল ভাঙচুর করেছে। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানান তিনি।

রাজবাড়ীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল ) মো. ইফতেখায়রুজ্জামান বলেন, দুই দলের কর্মসুচীকে কেন্দ্র করে পরিবেশ উত্তপ্ত হলে পর্যাপ্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে পরিবেশ পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আছে।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।

রাজবাড়ীতে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় আ.লীগ-বিএনপির কর্মসূচি পালন

আপডেট সময় ০৩:৪৯:০৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ মে ২০২৩

রাজবাড়ীতে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার মধ্য দিয়ে বিএনপি’র জনসমাবেশ ও আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ ঘটনায় ১১ জনকে আটক করা হয়েছে বলে দাবি বিএনপির। আহত হয়েছে এখন টেলিভিশনের রাজবাড়ী প্রতিনিধি কাজী তানভীর মাহমুদ ও গ্লোবাল টেলিভিশনের রাজবাড়ী প্রতিনিধি খোন্দকার রবিউল ইসলাম

গতকাল শনিবার সকাল ১১টায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পূর্ব ঘোষিত জনসমাবেশের আয়োজন করে বিএনপি। অপরদিকে সকাল ১০টা থেকে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে শান্তি সমাবেশের আয়োজন করে আওয়ামী লীগ। দুই গ্রুপের কর্মসুচীকে কেন্দ্র করে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
রাজবাড়ী জেলা বিএনপি কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বিএনপি’র জনসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বেগম খালেদা উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নুল আবেদিন ফারুক দাবি করেন, বিএনপি কার্যালয়ে প্রবেশ পথে তার গাড়িতে চারটি লাঠির আঘাত করা হয়েছে। এ সময় আগামী নির্বাচনে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে আসবে না বলে ঘোষণা দেন তিনি। এ সময় কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, রাজবাড়ী জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ বক্তৃতা করেন।

ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ম বলেন, জনসমাবেশে যাওয়ার আগেই নেতাকর্মীদের মারপিট করা হয়েছে। বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। অবিলম্বে তাদের মুক্তি দিতে হবে। এই হামলা ও মারপিটের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন তিনি।

অপরদিকে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ সোহেল রানা টিপু দাবি করেছেন, ছাত্রলীগ ও যুব লীগের নেতাকর্মীরা শান্তি সমাবেশে যোগ দিতে আসার সময় সাবেক বিএনপির সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়মের বাড়ির সামনে আসলে তারা হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে ও নেতাকর্মীদের পিটিয়ে আহত করে। পরে শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে আওয়ামী লীগ। যার নেতৃত্ব দেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী।
পরে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় শান্তি সমাবেশ। এসময় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, বিএনপি আবার দেশটা অস্থিতিশীল করতে পায়তারা করছে। তারা ধ্বংসের আন্দোলন শুরু করেছে। আমাদের নেতাকর্মীদের কর্মসুচীতে আসতে বাধা প্রদান করেছে। মারপিট করেছে, মোটর সাইকেল ভাঙচুর করেছে। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানান তিনি।

রাজবাড়ীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল ) মো. ইফতেখায়রুজ্জামান বলেন, দুই দলের কর্মসুচীকে কেন্দ্র করে পরিবেশ উত্তপ্ত হলে পর্যাপ্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে পরিবেশ পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আছে।