ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রেমিকের বাড়িতে কিশোরীর অবস্থান

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন এক কিশোরী। মঙ্গলবার সকাল থেকে ভোলার লালমোহন উপজেলার ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের করিমগঞ্জ এলাকার অজিউল্যাহ মাঝি বাড়িতে অবস্থান নেয় ওই কিশোরী।

জানা যায়, পার্শ্ববর্তী তজমুদ্দিন উপজেলার দক্ষিণ খাসেরহাট গ্রামের কিশোরীর সঙ্গে লালমোহনের করিমগঞ্জ এলাকার অজিউল্যাহ মাঝিবাড়ির মো. আব্বাস উদ্দিনের ছেলে শাকিলের সঙ্গে গত এক বছর আগে লঞ্চে পরিচয় হয়। এরপর ওই পরিচয় পরিণত পায় প্রেমের সম্পর্কে।

একপর্যায়ে ওই কিশোরীর ঢাকার গাজীপুরের কোনাপাড়া এলাকার বাসায় গিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয় শাকিল নামের ওই তরুণ। শারীরিক সম্পর্কের পর থেকেই ওই কিশোরীর সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় শাকিল।

ভুক্তভোগী ওই কিশোরী জানান, শাকিল যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়ায় গত রোববার প্রথমবার শাকিলের বাড়িতে এসেছি। তখন স্থানীয় ইউপি সদস্য লোকমান হোসেন ঘটনার সুষ্ঠু বিচার করবে বলে আশ্বাস দেন; যার কারণে তখন চলে যাই। তবে এরপর কোনো বিচার না পাওয়ায় আজ আবার শাকিলের বাড়িতে এসেছি। আমাকে দেখে বাড়ি থেকে শাকিলের পরিবারের লোকজন পালিয়ে যায়। শাকিল আমাকে বিয়ে না করলে আমি এখানেই আত্মহত্যা করব।

এদিকে শাকিলের পরিবারের কাউকে না পাওয়ায় এ ঘটনায় কারো বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য লোকমান হোসেন জানান, শাকিল এলাকায় না থাকায় তখন ঘটনার বিচার করতে পারিনি। আবারো ওই মেয়ে মঙ্গলবার সকাল থেকে শাকিলের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে বলে শুনেছি। দুইপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত ঘটনাটির ফয়সালা দেওয়ার চেষ্টা করব।

এ ব্যাপারে লালমোহন থানার ওসি মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, এখন পর্যন্ত এমন কোনো ঘটনা শুনিনি। বিষয়টি জেনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

কামাল হোসাইন

হ্যালো আমি কামাল হোসাইন, আমি গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। ২০১৭ সাল থেকে এই পত্রিকার সাথে কাজ করছি। এভাবে এখানে আপনার প্রতিনিধিদের সম্পর্কে কিছু লিখতে পারবেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

প্রেমিকের বাড়িতে কিশোরীর অবস্থান

আপডেট সময় ০৩:১৬:২১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন এক কিশোরী। মঙ্গলবার সকাল থেকে ভোলার লালমোহন উপজেলার ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের করিমগঞ্জ এলাকার অজিউল্যাহ মাঝি বাড়িতে অবস্থান নেয় ওই কিশোরী।

জানা যায়, পার্শ্ববর্তী তজমুদ্দিন উপজেলার দক্ষিণ খাসেরহাট গ্রামের কিশোরীর সঙ্গে লালমোহনের করিমগঞ্জ এলাকার অজিউল্যাহ মাঝিবাড়ির মো. আব্বাস উদ্দিনের ছেলে শাকিলের সঙ্গে গত এক বছর আগে লঞ্চে পরিচয় হয়। এরপর ওই পরিচয় পরিণত পায় প্রেমের সম্পর্কে।

একপর্যায়ে ওই কিশোরীর ঢাকার গাজীপুরের কোনাপাড়া এলাকার বাসায় গিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয় শাকিল নামের ওই তরুণ। শারীরিক সম্পর্কের পর থেকেই ওই কিশোরীর সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় শাকিল।

ভুক্তভোগী ওই কিশোরী জানান, শাকিল যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়ায় গত রোববার প্রথমবার শাকিলের বাড়িতে এসেছি। তখন স্থানীয় ইউপি সদস্য লোকমান হোসেন ঘটনার সুষ্ঠু বিচার করবে বলে আশ্বাস দেন; যার কারণে তখন চলে যাই। তবে এরপর কোনো বিচার না পাওয়ায় আজ আবার শাকিলের বাড়িতে এসেছি। আমাকে দেখে বাড়ি থেকে শাকিলের পরিবারের লোকজন পালিয়ে যায়। শাকিল আমাকে বিয়ে না করলে আমি এখানেই আত্মহত্যা করব।

এদিকে শাকিলের পরিবারের কাউকে না পাওয়ায় এ ঘটনায় কারো বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য লোকমান হোসেন জানান, শাকিল এলাকায় না থাকায় তখন ঘটনার বিচার করতে পারিনি। আবারো ওই মেয়ে মঙ্গলবার সকাল থেকে শাকিলের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে বলে শুনেছি। দুইপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত ঘটনাটির ফয়সালা দেওয়ার চেষ্টা করব।

এ ব্যাপারে লালমোহন থানার ওসি মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, এখন পর্যন্ত এমন কোনো ঘটনা শুনিনি। বিষয়টি জেনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করব।